Breaking News

সামনে বর্ষা, তাই সাপের প্রকোপ বেশি হবে…

সামনে বর্ষা, তাই সাপের প্রকোপ বেশি হবে….

অনেকদিন পর আজ সাপ কামড়ানো রোগী দেখালাম। গতকাল রাতে রোগী মাছ ধরতে গিয়েছিল, সেখানে তাকে সাপ কামড়ায়। এরপর যা সচরাচর হয় রোগীকে নিয়ে ঝারফুক, পা দড়ি দিয়ে শক্ত করে বাধা হয়। যখন রোগীর চোখে সমস্যা শুরু হয় (একটি জিনিস দুইটি দেখে) তখন হাস্পাতালে নিয়ে আসে। এতক্ষনে রোগীর আরও সমস্যা শুরু হয়, চোখের পাতা পড়ে যায় (ptosis), রোগী ঘাড় শক্ত করে রাখতে পারে না (broken neck sign) হয়। রোগী সাপের বিষ নিষ্ক্রিয় করার ঔষধ (polyvalent antisnake venom)দেয়া হয়। কিছুক্ষন পর রোগীর শাস কষ্ট শুরু হয়। এরপর রোগীর O2 এর মাত্রা অনেক কমে যায়, রোগীকে কৃত্রিমভাবে শাস-প্রশাস দেবার ব্যাবসহা করা হয়। আমি রোগীকে অনেক ভালো দেখলাম, রোগী অনেকটা response করছে। আরও এক ডোস সাপের বিষ নিষ্ক্রিয় করার ঔষধ (polyvalent antisnake venom)দেয়ার ডিসিশন দেয়া হল এবং সাথে inj. Atropine and inj. Neostigmine. আমি প্রায় ৫০ জনের মত বিষাক্ত সাপ দংশন এর রোগীর চিকিতসা করেছিলাম। আমার past experience থেকে মনে হয় রোগীটি ভালো হয়ে যাবে। সবার রোগীর জন্য দোয়া করবেন।
সাপ কামড়ানোর ঘটনাগুলো সাধারনত এরকম-
১। রাতের বেলা মাঠে মাছ ধরতে গিয়ে সাপ কামড়ায়।
২। বরষার সময় চারিদিকে যখন পানি থাকে তখন সাপ শুকনো জায়গার জন্য বাসার ভিতরে আশ্রয় নেয়। সাধারনত খড়ি রাখার জায়গায়, বিছানায়, রান্না ঘরে, আলনায় সাপ আশ্রয় নেয়। এসব জায়গায় অন্ধকারে/শব্দহীন ভাবে গেলে সাপ কামড়ানোর ঝুকি অনেক থাকে।
৩। রাতের বেলা অন্ধকার রাস্তায় চলার সময়। (কারন সাপ সাধারনত রাতের বেলা চলাচল বেশি করে)।
৪। মুরগী বা হাসের ঘরে।
৫। গরমের সময় বারান্দায় ঘুমানোর সময়।
সাপ দংশন থেকে প্রতিকার পেতে কি করা উচিত?
সাপ দংশন এর ঘটনাগুলো সাধারনত মে থেকে অক্টবর মাসে হয়ে থাকে। কারন এই সময় বৃষ্টি হয়, চারিদিকে পানি হয়। সাপ সাধারনত পানিতে থাকতে চায় না। তাই শুকনো জায়গার জন্য বাসা-বাড়িতে আসে। সেখানে কোন ভাবে মানুষের সাথে কন্টাক হলে, সাপ নিজেকে threatened মনে করলে তখন দংশন করে।
১। রাতের বেলা জরুরী প্রয়োজন ছাড়া মাঠে যাবেন না। গেলে অবশ্যই পরযাপ্ত আলোর ব্যবসহা করে যাবেন। যাবার সময় বড় একটা লাঠি নিয়ে সাম্নের জায়গায় লাঠি দিয়ে শব্দ করে যাবেন। শব্দ শুনলে সাপ অবশ্যই চলে যাবে।
২। খড়ি আনতে যাবার সময় লাঠি দিয়ে আগে শব্দ করে তারপর খড়ি নিতে যাবেন।
৩। রাতে রাস্তায় চলাচলের জন্য টরচ লাইট অবশ্যই সংগে রাখুন।
৪। মুরগী বা হাসের ঘরে লাঠি দিয়ে শব্দ করে পরযাপ্ত আলোর ব্যবসহা করে যাবেন।
৫। গ্রামের বিছানায় শোবার আগে কোন কিছু দিয়ে শব্দ করুন, ভালো করে দেখে বিছানায় শোবেন।
৬। কোনভাবেই বারান্দায় বা বাইরে শোয়া যাবে না।
সাপ কামড়ালে কি করবেন?
১। আতংকিত হবেন না। কারন সাধারনত শতকরা ৯৬-৯৭ শতাংশ সাপ দংশন হয় অবিষাক্ত সাপ দারা।
২। যে জায়গায় সাপ কামড় দিয়েছে সে জায়গাটা নাড়ানো যাবে না। ক্রেপ ব্যন্ডেজ দেয়া সবচেয়ে ভাল। তবে গ্রামে পাতলা গামছা বা শাড়ির কাটা অংশ দিয়ে লুস করে বেধে দিতে হবে। বাধার উদ্দেশ্য হল, যেন lymphatic drainage হতে না পারে, আর রোগী ওই অংশটা নাড়াতে না পারে। (সাপের বিষ lymphatic দিয়ে শরীরে ছড়িয়ে যায়)।
৩। কোন ভাবেই রোগীকে ঝারফুক, কবিরাজী, সাপ কাটার জায়গা ব্লেড দিয়ে কেটে ফেলা এসব করা যাবেনা। কারন কোনভাবেই সময় নষ্ট করা যাবে না। বিষাক্ত সাপ কামড়ালে যত তাড়াতাড়ি সাপের বিষ নিষ্ক্রিয় করার ঔষধ দেয়া যাবে রোগী তত ভালো হবার সম্ভবনা বেশী।
৪। রোগীকে দ্রুত কাছের হাস্পাতালে নিয়ে যাবেন, যেখানে সাপের বিষ নিষ্ক্রিয় করার ঔষধ এবং কৃত্রিম্ভাবে শাস-প্রশাস দেবার ব্যাবসহা আছে।
৫। অবশ্যই রোগীকে সাপ কামড়ানোর সময় থেকে ২৪ ঘন্টা অব্জারভ করে তারপর হাস্পাতাল থেকে নিয়ে যাবেন। কারন সাধারনত সাপ কামড়ানোর ২৪ ঘন্টার মধ্যে বিষক্রিয়া হয়। এই সময়ের মধ্যে বিষক্রিয়ার কোন লক্ষন না হলে আর ভয়ের কোন কারন নেই।
কেন কবিরাজরা ঝারফুক করলে সাপ কামড়ানো রোগী ভালো হয়?
এটি আসলে একটি ভুল তথ্য। আমাদের দেশে মাত্র ৪ প্রজাতির বিষাক্ত সাপ আছে-কালকেউটে, গোখরা, রাসেল ভাইপার আর গ্রিনপিট ভাইপার। আর সমুদ্রে সামুদ্রিক সাপ বিষাক্ত। এদের মধ্যে আমাদের এদিকে শুধুমাত্র কালকেউটে, গোখরা সাপ পাওয়া যায়। ইদানিং রাজশাহীর বরেন্দ্রতে রাসেল ভাইপার পাওয়া গেছে। তাহলে দেখা যাচ্ছে বিষাক্ত সাপের সংখ্যা খুব কম। তাই ১০০ জন মানুষকে যদি সাপ কামড়ায় তাদের মধ্যে ৯৮ জনকেই অবিষাক্ত সাপ কামড়াবে। মাত্র ২/৩ জনকে বিষাক্ত সাপ কামড়াবে। কবিরাজ যদি এই ১০০ জন রোগীকে ঝারফুক শুরু করে তবে ৯৫ জনেও বেশি ভালো হবে আর যে ২/৩ জনকে যাদের বিষাক্ত সাপ কামড় দিয়েছে তারা ভালো হবেন না। তাদেরকে কবিরাজ বলবে যে আমি পারব না, মেডিকেলে নেন। তাহলে কবিরাজ এর সফলতার হার ৯৫%। তাই সবাই বলে কবিরাজ সাপ কামড়ানো রোগী ভালো করতে পারে। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে বিষাক্ত সাপে কামড়ানো রোগীগুলোর ঝারফুকের এই সময়টা অনেক মূল্যবান। এ সব না করে রোগীকে দ্রুত হাস্পাতালে পাঠালে দ্রুত চিকিতসা শুরু করলে রোগী ভালো হবার সম্ভবনা অনেক বেশি। এসব ঝার-ফুক করে সময় নষ্ট করার কারনে অধিকাংশ বিষাক্ত সাপে কামড়ানো রোগীগুলো হাস্পাতালে যাবার রাস্তায় মারা যায়।

জনসচেতনতায়-ডাঃ রতীন্দ্র নাথ মন্ডল, মেডিসিন স্পেশালিষ্ট।

Please follow and like us:

About admin

Check Also

বিলুপ্তপ্রায় পাঁচটি প্রাণী- রাজশকুন, ঘড়িয়াল, মিঠাপানির কুমির, নীলগাই এবং শুশুক

বর্তমান সময়ে জীববৈচিত্র্য পড়েছে মহা সংকটে। ইতোমধ্যেই বিলুপ্ত হয়ে গেছে তালিকাভুক্ত অসংখ্য প্রজাতির উদ্ভিদ ও …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!