Breaking News

চলতি বছরের (২০১৯ ইং সালের) #বাজেট ও #দুগ্ধ দিবস উপলক্ষে খামারিদের ন্যায্য দাবি সমুহ:- ২৯.০৫.২০১৯ ইং।

#চলতি বছরের (২০১৯ ইং সালের) #বাজেট ও #দুগ্ধ দিবস উপলক্ষে খামারিদের ন্যাজ্য দাবি সমুহ:-
২৯.০৫.২০১৯ ইং।

1. #আমাদের দেশের হট ও হিউমিড অবাহাওয়া উপযোগী উচ্চ দুগ্ধ উৎপাদনে সক্ষম ব্রীডের বীজ সরবরাহ করতে হবে, যদি সরবরাহ না থাকে তবে আমদানী উম্মুক্ত করতে হবে।

2. #ভরতুকি প্রাপ্ত দেশ থেকে নিম্নমানের গুঁড়া দুধ কম শুল্কে আমদানী বন্ধ করতে হবে।যদি আমদানি একান্ত প্রয়োজন হয় তবে যে দেশ থেকে আমদানি হয় অই দেশের ভরতুকি হিসাব করে ট্যাক্স এডজাস্ট করতে হবে বা আমাদের খামারিদের ভরতুকি দিতে হবে। এটি না হয়াতে খামারিরা অসম প্রতিযোগিতাতে পড়ে খতিগ্রস্থ হচ্ছে।

( ইউরোপীয় ইউনিওন বছরে ৫২,০০০ কোটি টাকা বা ৫ বিলিওন ইউরো , আমেরিকা প্রায় ২০,০০০ কোটি টাকা বা ২.৩ বিলিওন ডলার,কানাডা প্রায় ৮০০ মিলিওন ডলার বা ৬,৫০০ কোটি টাকা ভারত ১.৫ বিলিওন ডলার বা ১২,৮০০ কোটি টাকা ডেইরিতে ভরতুকি দেয়)

3.প্রাণ,আড়ং, ফার্ম্ফ্রেশ,মিল্কভিটা ইত্যাদি তরল দুধ বাজারজাতকারী প্রতিষ্ঠান যাতে নিম্নমানের ভরতুকি প্রাপ্ত গুঁড়া দুধ আমদানী করে তা তরল দুধে মিশাতে না পারে তার কারজকরি ব্যাবস্থা গ্রহন করতে হবে।তাছাড়া পাস্তুরিত তরল দুধে পাউডার দুধ বা হে পাউডার মিশানোকে শাস্তি জোগ্য অপরাধ হিসাবে গন্য করতে হবে।
এবং খামারি পর্যায়ে সংগ্রহ মুল্য উতপাদন খরচের সাথে সমন্বয় করা।

5 খামারী পরযায়ে কাচা/তাজা দুধ ভোক্তা পর্যন্ত পৌঁছাতে সরকারি সহায়তা করতে হবে।

6 তরল দুধ পান করার জন্য সরকারী পর্যায়ে প্রচারণা চালাতে হবে। এমনকি কিছু কিছু ডাক্তার খাটি দুধ এর ব্যাপারে নেগেটিভ প্রচারনা করতে দেখা যায়। এর কারন নিরনয় জরুরি।
তাছাড়া দুধ নিয়ে বিভিন্ন মহলের অপ্প্রচার ঠেকাতে কার্যকর ব্যাবস্থা গ্রহন।

7 কন্ডেন্সড মিল্কের নামে হে পাউডার ও সয়াবিন এর গাদ দিয়ে তইরি যে বিষ আমরা খাচ্ছি তা নিষিদ্ধ করা জরুরি।

8 পশু খাদ্যের মূল্য সহনীয় করতে পশু খাদ্যের মুল্য নিয়ন্ত্রন ও শুল্কমুক্ত আমদানীর উম্মুক্ত করা।

ডেইরি ফার্ম কে আরো পাচ বছর আয়করের আওতার বাইরে রাখা।

9.কৃষির ভরতুকি মুল্যে ডেইরিতে বিদ্যুৎ বিল এর ব্যাবস্থা গ্রহন।বর্তমান এ ডেইরি তে বাণিজ্যিক হারে বিল আদায় করা হয়।

11. দেশে পরজাপ্ত পরিমান মানসম্পন্ন ক্ষুরা রোগের টিকা উৎপাদন ও কুল চেইন মেইনটেইন করে সারাদেশে খামারিদের মধ্যে সরবরাহ করা।

12 ডেইরি ফারমের রেজিষ্ট্রেশন ফী প্রত্যাহার করতে হবে।
বর্তমান এ টা ২,০০০- থেকে ১০,০০০/ টাকা পরজন্ত।

13 ডেইরী খাতকে সকল ধরনের শুল্ক ও আয়করমুক্ত রাখতে হবে।

14 প্রতিটি ইউনিয়ন পর্যায়ে প্রাণী সম্পদ অফিস থাকতে হবে, সেখানে ভেট ও ভিএফএ নিয়োগ দিতে হবে।

15 প্রাণি সম্পদ অফিস সমূহে ডেইরী বা অন্যান্য পশু পালন ও প্রযুক্তির উপর ট্রেণিং এর ব্যবস্থা রাখতে হবে।

17. স্বল্প সুদে ডেইরিতে পরজাপ্ত ঋণ প্রদানের ব্যাবস্থা গ্রহনন।

18 ডেইরি ফার্মের জন্য বিশেষ অঞ্চল ঘোষণা করে খামারীদের জমি বরাদ্দ দিতে হবে।নাহয় ডেইরি শিল্প এদেশে থাকবে না।

19. ডেইরি সেক্টরে রেফারাল কেইস চিকিতসার জন্য অভিজ্ঞ ডাক্তারের খুব অভাব।এটি সরকারি ভাবে নিসচিত করতে হবে।

20.প্রানিসম্পদ অধিদপ্তর এর পরজাপ্ত এপ ভিত্তিক কন্সাল্টেন্সি নিসচিত করা এবং বরতমান এপ গুলোকে আরো কারজকর করা।

এডমিন প্যানেল সদস্যগন
“Dairy Farmers of Bangladesh
ডেইরি ফার্মারস অফ বাংলাদেশ ”

Please follow and like us:

About admin

Check Also

দুধের ল্যাক্টোফেরিন

ল্যাক্টোফেরিন হলো একটি আয়রন সমৃদ্ধ প্রোটিন। সর্বপ্রথম ১৯৩৯ সালে গরুর দুধে এই প্রোটিনের সন্ধান মেলে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!