Breaking News
রিপিড ব্রিডিং
রিপিড ব্রিডিং

পুনঃপুনঃ গরম হওয়া Repeat Breeding

পুনঃপুনঃ গরম হওয়া
Repeat Breeding

একটি বাণিজ্যিক ডেইরী ফার্মের প্রধান প্রধান সমস্যা গুলোর মধ্যে রিপিট ব্রিডিং একটি অন্যতম মারাত্নক সমস্যা।

প্রায়ই সব খামারী এই সমস্যায় ভুগছে। গাভী বা বকনা যদি স্বাভাবিক ইষ্ট্রাস ( Estrous) চক্রে বার বার গরম হয় এবং তিন বারের অধিক পাল বা কৃত্রিম প্রজনন করা সত্ত্বেও গর্ভধারন না করে, তখন ঐ গাভীকে রিপিট ব্রিডার গাভী বলা হয় এবং এই সমস্যাকে Repeat Breeding পুনঃপুনঃ গরম হওয়া বা বার বার ডাকে আসা বলে।

তিন বার প্রজনন করেও গর্ভধারনে ব্যর্থ হওয়ার হার ১০.০১% হয়।

বর্তমান আমাদের দেশের বেশির ভাগ গাভীই এই পুনঃপুনঃ গরম বা ডাকে আসা বা হিটে আসা (Repeat Breeding) এর শিকার।

কারণঃ 

> জরায়ুতে জীবানুর সংক্রমন Metritis, Endometritis, Perimetritis, Perametritis হলে।
> প্রজনন তন্ত্রের বিভিন্ন রোগ, যৌন অঙ্গের বিকলঙ্গতা, হরমোনের ভারসাম্যহীনতা ও ওভারিয়ান সিস্ট ইত্যাদি।
> লুটিয়াল গ্রন্থির কার্যকারীতা তারাতাড়ি বন্ধ হলে বা স্বাভাবিক ঋতুচক্রের মত লুটিয়াম স্বল্পস্থায়ী হলে।
> ডিম্ব দেরিতে নিঃসারিত হলে এবং নিন্মমানের ভ্রূন সৃষ্টি হলে।
> Estrous সঠিকভাবে নির্নয় করতে না পারলে।
> সময়মত ও যথাস্থানে Semen স্থাপন না হলে।
> অপর্যাপ্ত ও নিন্মমানের Semen দ্বারা প্রজনন করালে।
> অদক্ষ এ আই কর্মী দ্বারা প্রজনন করালে।
> বিভিন্ন পুষ্টির অভাবে অনুর্বরতায় ভুগলে।

লক্ষন

> জরায়ু থেকে নিশ্রিত মিউকাসের রং অনেক সময় খুব পাতলা ও ঘোলাটে হতে দেখা যাবে।
> যোনী পথে মিউকাসের পরিমান একেবারে কম অথবা খুব বেশি পরিমানে ভাংবে।
> ডাকে আসা সময়কাল খুব কম অথবা অতিদীর্ঘ হতে দেখা যাবে।
> নির্দিষ্ট ঋতুচক্রে গরম হলেও, প্রজনন করালে তা গর্ভধারন করবেনা।

রোগ নির্ণয়

> ওভারীতে ফলিকুলার সিস্ট বা লুটিয়াল সিস্ট বা জরায়ুর সংক্রমন দেখে এ রোগ নির্নয় করা যায়।
> রোগের উল্লেখ্যযোগ্য উপসর্গ ও রোগের ইতিহাস জেনে এই রোগ নির্নয় করা যায়।

ম্ভাব্য ব্যবস্থা

জরায়ুতে জীবানুর সংক্রমণ এবং হিটে আসার সময় মিউকাস অতি পাতলা বা ঘোলাটে হলে পেনিসিলিন জাতীয় ঔষধ যেমন inj: Pronapen vet 40 lac অথবা অক্সিটেট্রাসাইক্লিন জাতীয় ঔষধ inj: Renamycin-100 বড় ও মাঝারী গরুর জন্য জরায়ুতে এ আই টিউবের মাধ্যমে পরপর ৩ ডোজ ৩০ সিঃসিঃ করে দিলে এ রোগ হতে রক্ষা পাওয়া যায়।

যা গরম হওয়ার ৮ম ও ২৩ তম ঘন্টায় দুই ডোজ এবং ২য় ডোজের ২৪ ঘন্টা পর ৩য় ডোজ দিতে হবে।
> সিষ্ট হলে, চিকিৎসক দ্বারা সিষ্ট ভেংগে দিতে হবে।
পাশাপাশি
® inj: TOCOVITA AD3E 100ml (komipharma, Korea) বড় ও মাঝারী গরুর জন্য ১০ সিসি করে ৭ দিন পরপর তিন মাত্রা দিলে ভালো ফল পাওয়া যায়।
® inj: Vitaphos 30ml (Renata) বড় ও মাঝারি গরুতে ১৫ সিসি করে ৪ দিন পরপর ৩ মাত্রা দিতে হবে।
পরবর্তী ডাকে আসলে প্রজনন করাতে হবে এবং প্রজনন করানোর সময় গাভীকে inj: GnRH (Gonadotropin-releasing hormone) মাংশে দেওয়া যাবে।

প্রতিরোধ

> স্বাস্থ্য সম্মত বাসস্থানে গাভীকে রাখা ও পরিমানমত সুষম দানাদার খাদ্য, কাঁচা ঘাস, খৈল এবং ফসফরাস, কপার, কোবাল্ট, মাঙ্গানিজ, সিলেনিয়াম, ভিটামিন এডিই জাতীয় পুষ্টির সরবরাহ নিশ্চিত করুন।

> পরপর তিন বার প্রজনন করা সত্ত্বেও গর্ভধারনে ব্যর্থ হলে উক্ত গাভী বা বকনাকে ৪র্থ বার প্রজনন না করিয়ে বিশ্রাম দেওয়া এবং বিশ্রাম চলাকালে চিকিৎসা সম্পন্ন করা।

> গর্ভফুল আটকে যাওয়া গাভীকে তিন মাসের আগে প্রজনন না করাই ভালো। সে ক্ষেত্রে পুর্বেই চিকিৎসা দিয়ে রাখতে হবে।

> হিটে আসার সময় ১২ থেকে ১৮ ঘন্টার মধ্যে প্রজনন করা এবং পুনরায় ৬ ঘন্টা পর আবার প্রজনন করা।

> সাস্থ্য সম্মত উপায়ে দক্ষ এ. আই. কর্মীর মাধ্যমে সবল Semen দ্বারা প্রজনন করাতে হবে এবং Semen দেয়ার পর এ. আই কর্মীর হাত দিয়েই ক্লাইটোরিসে ৩/৪ সেকেন্ড ম্যাসেজ করতে হবে।

> প্রজনন করার পর অবশ্যই গাভী বা বকনাকে গোসল করাতে হবে এবং ঠান্ডা ও ছায়াযুক্ত স্থানে রাখতে হবে।

> প্রজনন করানোর পর ৫০ মিলি ই-সেলেনিয়াম এবং ৫ দিন পর পুনরায় আবার ৫০ মিলি খাওয়ালে এবং প্রজনন করার দিন থেকে আয়রন Syr: FEROVET 1000ml (Acme) ১০০ মিলি করে ১০ দিন খাওয়ালে কন্সেপশন হার বৃদ্ধি পায়।

রমোন প্রিপারেশন
> প্রজনন করার ৩০ মিনিট পুর্বে হরমোন ইনজেকশন যেমন ( FERTILON 5ml, Fertazyl 2.5ml, Chorulon-hcg 1 vial) দিয়ে তারপর Semen দেওয়া যেতে পারে।

মেডিসিন প্রিপারেশন
> গাভী বা বকনা বাচ্চা দেওয়ার ৪০/৪৫ দিন পর কৃমিমুক্ত করে Syr: Eskavit AD3E 100ml (SK-F) বড় ও মাঝারী দৈনিক ২০ মিলি করে দিনে একবার খাওয়াতে হবে।
inj: Vitaphos 30ml (Renata) বড় ও মাঝারী গরুতে ১৫ সিসি করে ৪ দিন পরপর ৩ মাত্রা দিলে পরবর্তিতে সময়মত ডাকে আসা ও কন্সেপশন এর হার বৃদ্ধি পেতে সহায়তা করে।

তথ্য ও পরামর্শ
ডাঃ মনোজিৎ কুমার সরকার।
DVM; MSc (obstetrics)
উপজেলা প্রানীসম্পদ অফিসার, কাউনিয়া, রংপুর।

 

√সাধারনত যেসকল গাভী কমপক্ষে একবার বাচ্চা দিয়েছে ; বয়স ১০ বছরের কম; নিয়মিত estrous cycle show করছে কিন্তুু ৩-৪ বার সার্ভিস দেওয়ার পরও concieve failure হচ্ছে এই অবস্থাকে আমরা Repeat Breeding (RBS) syndrome বলে থাকি।

কারন

√Repeat breeding syndrome বিভিন্ন কারনে হয়ে থাকে।এই কারনগুলোকে আমরা ৩ টি ক্যাটাগরিতে ভাগ করতে পারি;

#No_1
#Semen_condition :
>নিন্ম মানের semen দ্বারা AI করালে
> অদক্ষ টেকনেশিয়ান দ্বারা AI করালে
>নিশ্চিতভাবে estrous detectionকরতে না পারা
> Unhygienic অবস্থায় AI করানো
> Infertile bull দ্বারা ব্রিডিং করানো

#No_2
#Reproductive_tract:
> Reproductive tract এ কোনো abnormalities দেখা দিলে(ovarian cyst,luteal insufficiency,delayed ovulation,early embryonic death)
> Genital tract এ কোনো infection থাক্লে(campylobacteriosis,Trichomoniasis)
>Peri-parturient disease থাকলে (metritis)।
>Reproduction মানেই হরমোনের খেলাধূলা হরমোন production ঠিকমতো না হলেও এই সমস‍্যা হয়ে থাকে।

#No_3
#Nutritional_fact:
> Post-partum period এ অনেক মালিক গাভীকে উচ্চমানের প্রোটিন খাওয়ায় যার ফলে uterus এর ph পরিবর্তন হয় এবং progesterone level হ্রাস পায়। progesterone কম মানে concieve করার chance ও কম।
> এছাড়াও ca,p,mg,cu,zn,vit A, vit E ও se ঘাটতি থাকলে।
>বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের এর একটি গবেষণা তে দেখা গেছে যেসব গাভীকে কাঁচা ঘাস কম আর খড় বেশি খাওয়নো হয় তাদের এই সমস‍্যাটি বেশি হয়ে থাকে।

#DIAGNOSIS:

★Cervico-vaginal colour, consistency পরীক্ষার মাধ্যমে :
cervical mucus + NaOH— Boil
যদি হলুদ কালার ধারন করে তাহলে বুঝতে হবে metritis.

★ Recto-vaginal palpation করে uterine tone এবং অন্যান্য organ গুলোর physiological অবস্থা পরীক্ষা করতে হবে।

★uterus এর ph normally 7.3 থাকে।যদি ph 6.9 or 8.0 থাকে তাহলে বুঝতে হবে endometritis।

★ Matabolic profile পরীক্ষা যেমন body তে গ্লুকোজ, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস level test করতে হবে।

★এছাড়াও ultrasound examination,VER সহ অনেক উপায়ে diagnosis করা হয়ে থাকে।

এখন তাহলে এই সমস্যার সমাধান কি কিংবা ম্যানেজমেন্ট কিভাবে করা যায়??

#MANAGEMENTAL_THERAPY_&_TREATMENT :

> প্রথমেই সঠিকভাবে heat detection করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ
> দক্ষ লোক দ্বারা AI করাতে হবে।
> ভালো মানের semen দ্বারা AI করাতে হবে।

*For Nutrional Def:
Balanced খাবার সরবরাহ করতে হবে ,একটি গাভীকে দৈনিক
1.Fish meal-250gm,
2.Til oilcake-50gm,
3.molasses-3 চামচ,
4.DCP powder-1 চামচ,
5.Iodine salt-1 চামচ ভালো ভাবে মিশিয়ে ৩ মাস খাওয়াতে হবে।

★Uterine infection:
এক্ষেত্রে saline water দিয়ে ভালোভাবে wash করতে হবে এবং intrauterine or parental antibiotics ব্যাবহার করতে হবে।
>Penicillin @80lac এটা কমপক্ষে ৫ দিন দক্ষ চিকিৎসক দিয়ে করাতে হবে।

★Hormonal therapy

>যদি delayed ovulation এর কারনে হয়ে থাকে; তাহলে GnRH or HCG injection AI করার পরপরই মাংসে ইনজেকশন করতে হবে।

Dose:-
1. GnRH-100-500ug/animal at IM or

2. HCG-1500-3000iu /animal at IM

>আর যদি examination করে বোঝা যায় luteal deficiency এর কারনে সমস্যা হচ্ছে সেক্ষেত্রে

progesterone injection-100-250mg IM 3 times at 10 days interval.

*Double dose GnRH injection ;
এক ডোজ Ai করার পরপরই,
2nd dose AI করার 14 দিনের মাথায় পুশ করতে হবে।

কৃত্রিম প্রজনন ( Artificial Insemination)
উন্নত জাত সৃষ্টির জন্য কৃত্রিম উপায়ে সংগৃহিত উন্নত জাতের পশুর শুক্রাণু গরম বা (Estrus)অবস্থায় গাভীর জরায়ুতে প্রয়োগ করে গর্ভসংন্চার পদ্বতিকে
কৃত্রিম প্রজনন বলা হয়।
কৃত্রিম প্রজননের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস (Brief history of artificial Insemination).

*বহু প্রাচীন কাল থেকে(১৩০০খ্রীষ্টপূ্’ব)আরব দেশে
ঘোড়ার কৃত্রিম প্রজননের প্রচলন ছিল বলে জানা যায়।
১৩৩২খ্রীস্টাদ্ধের দিকে প্রাচীন আরবীয় লেখ্য থেকে দেখা যায় যে এক আরবীয় সর্দার প্রাইজ-প্রাপ্ত ঘোটকীর সাথে এক শত্রুর সুবিদিত ঘোড়ার (outstanding stallion) সাথে প্রজননে আগ্ৰহী হন ।
তিনি ঘোটকীর জনন নালীতে এক দন্ডযুক্ত তুলা প্রবেশ
করান,পরে সেটির মাধ্যমে ঘোড়াকে উত্তেজিত করে সিমেন নির্গত করায়। সে সিমেন ঘোটকীর যৌন নালীতে প্রয়োগ করে গর্ভধারণ করাতে সক্ষম হন।
*১৯০০ খ্রীষ্টাদ্ধে প্রফেসর আইভানোভ(Ivanov)কে
রাশিয়ার রাজা ঘোড়ার কৃত্রিম প্রজননের উন্নয়নের
জন্য নিযুক্ত করেন।১৯৩৩ খ্রীস্টাদ্ধের মধ্যে গরু, ঘোড়া,
মেষ, শূকরের সিমেন সংগ্রহ পদ্ধতি ও প্রজনন পদ্ধতির
উন্নয়ন করেন। তিনি সর্বপ্রথম গাভীর কৃত্রিম প্রজনন
করতে সক্ষম হন।
*১৯৩১সনে রাশিয়ার সর্বপ্রথম গাভীর কৃত্রিম প্রজনন
ব্যপকভাবে করা হয় এবং প্রায় ১৯,৮০০ গাভীর কৃত্রিম প্রজনন করা হয়।
* তাদের প্রদর্শিত সেই পদ্ধতি আজ অবধি বাংলাদেশ
সহ বিশ্বব্যাপি প্রচলিত। অবশ্য বাংলাদেশে ১৯৫৮ সালে
সর্বপ্রথম কৃত্রিম প্রজনন আরম্ভ হয়।

 

Please follow and like us:

About admin

Check Also

বাছুরের ডায়রিয়ার কারণ

Couses of diarrhea in neonatal rumenants 🔷Bacterial: 🔸Escherichia coli 🔸Salmonella spp. 🔸Campylobacter fecalis 🔸Campylobacter coli …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!