Breaking News

টিপস: ১৩

১।টিকা

সকল কিল্ড টিকা ঘাড়ে দেয়া যায়।

আই বি চোখে দেয়া ভাল

লাসোটা পানিতে

আই বি ও রানিক্ষেতের মাঝে  ১০দিন গ্যাপ দেয়া উচিত কারণ এরা একে অপরকে ইন্টারফেয়ার করে।

লাইভ এর ক্ষেত্রে ২টি একই টিকার মাঝে ৭দিন গ্যাপ দেয়া উচিত আর কিল্ড টিকার ক্ষেত্রে ২১দিন।

টিকার পানির তাপমাত্রা ১৬-১৭ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেট হওয়া উচিত।

কম্বাইন্ড টিকার চেয়ে সিংগেল টিকা ভাল কাজ করে।

লাসোটা টিকা অন্ধকার ঘরে পানির ভিতরে নিয়ে মুখের ক্যাপ খুলা ভাল।।

২।সুগার ক্যান(আগের গুড়)

এতে ১৮টি এমানো এসিড,৮টা ভিটামিন,১৫টা ট্রেস মিনারেলস,৩টা ক্যারোটিনয়েডস,২টা পলিফেনল,২টা অলিগোস্যাকারাইড,৮ধরণের ফ্যাটি আসিড আছে।

এতে  সব এমানো এসিড আছে যা লেমনেস দূর করে এবং গ্রোথের জন্য ভাল।

এতে প্লিফেনল আছে যা এন্টিওক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে।

আরো আছে ভিটামিন সি,পটাসিয়াম যা ইয়ক সেক ইনফেকশন,আই বি এইচ,গাম্বোরো ,গাউটের বিরুদ্ধে কাজ করে।এটি লাক্সাটিভ হিসেবে কাজ করে।

১ম ৩দিন বাচ্চার জন্য ৫০কিলো ক্যালোরি এনার্জি দরকার।

৩দিনের জন্য ১০ এম এল জুস,১গ্রাম চিনি দরকার

৩।

কম ওজনের ব্রিডের (লেয়ারের) ভিটামিন ও মিনারেলস বেশি দিতে হয়।কারণ বডির ওজন কম হলেও ডিমের ওজন একই হয়।

গরমের সময় সয়াবিন তেল ১-২% হারে খাবারে দিলে ডিম বাড়ে।

৪। গম

খাবারে ১০% দেয়া যায়,এতে আর্দ্রতা ১৪-১৫% থাকে তাই বেশি দেয়া ঠিক না।আবার এটি গাট প্রব্লেম করে।

গম ব্যবহার করলে সাথে বায়োটিন ও জাইলানেজ দেয়া ভাল।

লাল গমে বেশি লাইসিন,মেথিওনিন,এনার্জি ও ফ্যাট থাকে।

অংকুরিত গমে বমিটক্সিন ও জিয়েরালিনন থাকে।

২-৩দিন রোদে শুকালে ১০ % বেশি ব্যবহার করা যাবে।

৫।লেয়ারকে কখন খাবার দিবেন

কেউ ২ দেয় কেউ ৩বার দেয়।

ক্রপ যদি খালি হয়ে যায় তাহলে ব্রেইনে ক্ষুধার সিগনাল চলে যায় তখন আবার খাওয়া শুরু করে।

সময়ের সাথে খাবারের একটা সম্পর্ক আছে লেয়ার সিকালে ও সন্ধ্যায় বেশি খায়

৩বার দিলে ভোর ৪টায়,সকাল ৮টায়।সন্ধ্যায় ৫-৬টায়

পাখি এক সাথে ১০০গ্রাম  খায় এর মধ্যে ৭০গ্রাম খাবার আর ৩০ এম এল পানি।

সকালে  ৪-১১টায় লেয়ার ঘন্টায়  ৬-৮গ্রাম করে খাবার খায় আর বিকালে ৪.৩০-৭টায় ঘন্টায় ৮-১০গ্রাম করে খাবার খায়।

Blood ph is alkaline in noon due to panting but digestion takesplace in acidic ph so evening feeding has better results than m0rning or noon feeding

 ৬।জীবানূঃ

Darking bettles:এগুলো পুরাতন লিটারে থাকে পিলার দিয়ে সেডে ঢুকে এবং রানিক্ষেত,কলেরা,সালমোনেলা, এইচ পি এল আই বহন করে।

মোবাইল সেট ও ভাইরাস এক সেড থেকে আরেক সেডে ছড়াতে পারে।

ফ্লাই সালমোনেলা ছড়ায়

ডিবেকার ও ভ্যাক্সিন গান ও ডিমের ট্রে ফিউমিগেশন করা উচিত।

পুরাতন লিটার থেকে গাম্বোরো ও এল পি এ আই(LPAI) ছড়ায়।

বন্ধ পানি ও পুরাতন লিটার থেকে রানিক্ষেত ও এল পি আই ছড়ায়।

রাজহাঁস ও ওয়াটার ফাউল রানিক্ষেত ও এল পি এ আই ছড়ায়।

৭।চুনের ব্যবহার

চুন এল পি এ আই(lPAI) ও রানিক্ষেতের জীবানূর বিরুদ্ধে কাজ করে।

চুনে ২৬% ক্যালসিয়াম থাকে।

চুন পানির পি এইচ বৃদ্ধি করে।

২০০০লিটার পানিতে ১০কেজি চুন সারা রাত রেখে দিতে হবে,

সপ্তাহে ১দিন মুরগিকে দেয়া যায়,এটি এল্গি,মস কে পানির লাইন থেকে ফ্লাস করে বের করে দেয়।

খোসার মান ভাল রাখে ও প্যারালাইসিস কমায়,এন ডি ও এল পি এ আই(LPAI) থেকে রক্ষা করে।

তবে পি এইচ যাতে ৮এর বেশি না হয় ।

৮।ইস্ট

ইস্টে বিটাগ্লুকাগন,নিউক্লিওটাইডস,মিনারেলস,৪০-৪৫% প্রোটিন থাকে ও এসেনসিয়াল এমানো এসিড থাকে।

তাছাড়া এরা আলফাটক্সিন কে শোষণ করতে পারে।

পানিতে যদি বেশি ই -কলাই থাকে তাহলে ইস্টের ভিটামিন বি ১২কে ব্যাক্টেরিয়া নিজেই কাজে লাগায় তাই পানিতে যাতে জীবানূর লোড কম থাকে সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে।

৯। মিলেট

মিলেট আসতে আসতে তাপ তৈরি করে কিন্তু তাড়াতাড়ি ডাইজেস্ট হয় গম ও ভুট্রার তুলনায়,কারণ এতে গ্লুটেন কম থাকে।

১০।মুরগির শরীরে প্রায় ৭০% পানি .১০% পানি কমে গেলে ডিহাইড্রেশন হয়,আর ২০% কমে গেলে মারা যেতে থাকে।

ডিমে ১২% প্রোটিন থাকে মুরগিতে প্রোটিন থাকে প্রায় ২০%।

ব্রয়লারে খাবার হজম হতে ৪ ঘন্টা লাগে।

 

 

Please follow and like us:

About admin

Check Also

টিপস ৩২

ডিমের কোয়ালিটির সাথে জড়িত বিষয় ক্রোমিয়াম ও কপার(Pluming process in uterus) এস কর্বিক এসিড ক্টন …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!