মুরগির সকল টিকা,টিকা দেয়ার নিয়ম,মাতা হতে প্রাপ্ত এন্টিবডি এবং ইমোনিটি বিস্তারিত.

পর্ব :১

লেয়ার মুরগি( বাণিজ্যিক)

দিন                          টিকা
১ম দিন                মেরেক্স***(লাইভ ইঞ্জেকশন))

হ্যাচারীতে দিতে হয়।

৩-৫ম দিন             আই বি +এন ডি***

৬-৮ তমদিন         এন ডি + আই বি ডি**(মৃত)

১০-১২ দিন        আই বি ডি***

১৩তম দিন            মেরেক্স**(লাইভ)

১৭-১৯তম দিন    আই বি ডি***

২৫-২৭তম দন      এন ডি + আইবি***

৪-৫ সপ্তাহ            পক্স**

৪২-৪৫ তমদিন        করাইজা**(মৃত)

৪৯-৫০দিন           টাইফয়েড  (লাইভ,কিল্ড)

৫২-৫৫তম দিন।        কলেরা( মৃত)

৬০-৬৫তম দিন          আই বি + এন ডি ***

৭০-৭৫তম দিন।              পক্স*

প্রচলিত না।

৭৭-৮০তম দিন।        করাইজা*( মৃত)

৯০-৯৫তম দিন।            কলেরা(মৃত)

১০০তম দিন             টাইফয়েড

১৫-১৬ সপ্তাহ।                আই বি +এন ডি +ই ডি এস(মৃত)*** সাথে এন ডি লাইভ

 

এ আই টিকা দিলে হ্যাচারীতে দিলে ভাল হয় ,না দিলে ২ ,৮,১৬ সপ্তাহে দিতে হবে।

***ফরজ
**সুন্নত
*নফল
অন্য টিকা গুলো পরিবেশ পরিস্থিতি অনুসায়ী বিবেচনা করে দেয়া উচিত.

ব্রয়লারের জন্য:

দিন                   টিকা
১-৫ দিন        আই + এন ডি
১০-১২দিন       আই বি ডি

১৭-২০দিন         আই বি ডি

২০-২২দিন এন ডি দেয়া যায়

যদি ৩০দিনের বেশি রাখা হয়।,

সোনালির জন্য:

দিন                     টিকা
১-৫দিন             আই বি + এন ডি

১০-১২ দিন       আই বি ডি
১৭-১৯               আই বি ডি

৪-৫ সপ্তাহে            পক্স
২৫-৩০দিন               আই বি +এন ডি বা এন ডি

লেয়ার ব্রিডারঃ

চামড়ার নিচে মানে S/C subcuteneous,A E : avian encephalomyelitis,ww: wing web পাখার চামড়ায়,

দিন/সপ্তাহ                                  টিকা                                      রুট

৩দিন                                    কক্সি                                         মুখে

৭দিন                            আই বি +এন ডি                                  চোখে

১২ দিন                   আই বি ডি লাই্ভ, মুখে আ ইবিডি +এন ডি কিল্ড   চামড়ার নিচে

১৯-২০দিন                আই বি ডি ,মুখে    আই বি +এন ডি               চোখে

৬ সপ্তাহ                পক্স,পাখায়,সালমোনেলা,                     চামড়ার নিচে S/C

৮ সপ্তাহ                 এন ডি কিল্ড,চামড়ার নিচে, আই বি + এন ডি         চোখে

১০ সপ্তাহ               এ ই+ পক্স পাখায় W/W,করাইজা               চামড়ার নিচে S/C

১৩ সপ্তাহ                   আই বি,চোখে,সালমোনেলা                 চামড়ার নিচে S/C

১৪ সপ্তাহ                  CAV,চিকেন এনিমিয়া,                       বুকের মাংসে

১৭ সপ্তাহ             করাইজা                                                 চামড়ার নিচে S/C

১৭ সপ্তাহ              এন ডি লাইভ চোখে,আই বি + এন ডি+ ই ডি এস+ আই বিডি,  বুকের মাংস।

ব্রয়লার  ব্রিডারের টিকা সিডিউল

নোটঃ S/C;subcuteneous( চামড়ার নিচে),ক্যাভ(CAV )chicken anaemia virus,রিও ;Reo virus,এম জি (MG );mycoplasma

জিG (Gumburo)এন ডি(রানিক্ষেত)আই বি(bronchitis)

দিন /সপ্তাহ                       টিকা                                           রুট

৩দিন                            কক্সি                                             মুখে

৭ দিন                         আই বি + এন ডি,চোখে,রিও লাইভ  S/C

১২ দিন                         জি+ এন্ডি,,S/C,আই বি ডি ২        চোখে

১৯ দিন                    আই বিডি প্লাস,মুখে,আই বি +এন ডি     চোখে

৬ সপ্তাহ                 পক্স,পাখায় WW,সালমোনেলা      চামড়ার নিচে S/C

৭সপ্তাহ                    রিও লাইভ                                    চামড়ার নিচে

৮ সপ্তাহ                এন ডি কিল্ড,    আই বি + এন ডি,    চোখে

১০ সপ্তাহ            এম জি,S/C  ,আই বি +এন ডি         চোখে

১১ সপ্যাহ           করাইজা                                        চামড়ার নিচে

১২ সপ্তাহ               রিও কিল্ড S/C,আই বি              চোখে

১৪ সপ্তাহ                 ক্যাভ( CAV)                           বুকের মাংসে

১৭ সপ্তাহ                   করাইজা                        চামড়ার নিচে

১৮ সপ্তাহ              রিও +আইবি+এন ডি+জি, বুকের মাংসে,এম জি,S/C,এন ডি লাইভ চোখে

১৯ সপ্তাহ             সালমোনেলা,S/C,ই ডি এস        বুকের মাংসে

৪০ সপ্তাহ                রিও+আই বি+এন ডি +জি      বুকের মাংসে

 

আই বি( ব্রংকাইটিস)
এন ডি ( রানিক্ষেত)
আই বি ডি( গাম্বোরু)

বিভিন্ন কোম্পানির টিকার তালিকা বিভিন্ন রকম

টিকার তালিকা প্রয়োজন অনুযায়ী পরিবরতনশীল,এলাকা অনুযায়ী রোগের ধরণ বিভিন্ন তাই একেক এলাকায় একেক রকম টিকার সিডিউল হবে,

পানির মাধ্যমে টিকা দিলে কতটুকু পানি লাগবে তা নিম্নে দেয়া হল.

১০০০ লেয়ার মুরগির জন্য

বয়স               পানি
০-৪ সপ্তাহ  ১০-১৫ লিটার

৫-১০ সপ্তাহ ১৫-২৫ লিটার

১০-১৬ সপ্তাহ। ৫০-৫৫ লি

১৭ সপ্তাহের অধিক ৬০-৭০ লি

আবহাওয়ার উপর নির্ভর করে কিছুটা কম বেশি হবে.

টিকার দেয়ার দিন, আগের দিন,এবং পরের দিন স্পে বা পানিতে ক্লোরিন দেয়া যাবেনা,এন্টিবায়টিক ও পানিতে ইমারজেন্সি না হলে দেয়া ঠিক নয়.

 খাবার পানিতে টিকা দেয়ার নিয়ম:

১.৫-২ ঘন্টায় কতটুকু পানি খায় তা আগের দিনে সকালে খাবার দেয়ার  ৪৫মিনিট পর হিসেব করতে হবে।

তবে ২ ঘন্টায় যা খায় তার ৫% পানি বেশি দিতে।

দেড় ঘন্টার কম হলে সব মুরগি খেতে পারে না আবার ২ ঘন্টার বেশি হলে টিকা মারা যেতে পারে।

টিকা দেয়ার  ১ ঘন্টা  আগে পানি  বন্ধ রাখতে হবে।

প্রয়োজনীয় উপকরণ ঃ

প্লাস্টিক কন্টেইনার(৮০লিটার)

মিশানোর জন্য রাবারের কাঠি

গ্লোবস

স্কিম মিল্ক

জগ

প্রথমে হাত ধুয়ে গ্লোবস পড়ে  সমস্ত কাজ করতে হবে।
পানির সাথে পাউডার মানে ভেক্সিব্রুস্ট বা ভেক সেফ বা এগ্রোমিল্ক বা স্কিম মিল্ক ২.৫ গ্রাম ১ লিটার পানির জন্ মিশাতে হবে এবং ৫-১০লিটার স্টক সল্যুশন তৈরি করতে হবে এবং ২০ মিনিট রেখে দিতে হবে ক্লোরিন বা হেবি মেটাল নিউট্রালাইজ করার জন্য।

স্কিম মিল্ক  মিশ্রিত ১-২ লিটারের মত  স্টক সলুশনে   ভ্যাক্সিন ভায়ালের ক্যাপটা খুলে নিয়ে এই মিশানো পানিতে  ভ্যাক্সিন ভায়াল টা ডুবিয়ে ভায়ালের মুখের রাবার ব্যাং খুলতে হবে ।

খেয়াল রাখতে হবে য যাতে টিকাটি ভাল ভাবে গলে যায়।

আস্তে আস্তে রাবারের কাঠি দিয়ে মিক্স করতে হবে এবং অবশিষ্ট পানি মিশাতে হবে যাতে ১.৫-২ ঘন্টার মধ্যে শেষ হয়ে যায়.
সেডের ভিতর দিয়ে ২ বার হাঁটতে হবে যাতে সবাই সমান ভাবে খেতে পারে।

ভ্যাক্সিনের পানির সাথে নতুন পানি যোগ করা যাবে না।

খেয়াল রাখতে হবে পানি যেন ঠান্ডা থাকে মানে ১৫-২৫’ সেন্টিগ্রেট হয় এবং কম পক্ষে ৯০% মুরগি পানি খায়.

সকালে বা সন্ধায় মানে সূর্যের আলো যাতে টিকা বা টিকার পানিতে না পড়ে,

আই বি ডি  টিকা মুখে আর রানিক্ষেত ও ব্রংকাইটিস টিকা চোখে দিলে ভাল কাজ করবে।

চোখে টিকা দেয়ার নিয়ম:

ঠান্ডা সময় মানে সকাল বা বিকালে টিকা দিতে হবে, ডিম পাড়া মুরগি হলেকিল্ড টিকা  বিকালে টিকা দিতে হবে তবে লাইভ টিকা সকালে পানিতে দেয়া যাবে।

যে ডাইলোয়েন্টা দেয়া হয় সেটাও ফ্রিজে নরমালে রাখতে হবে।

গরমের সময় হাত গরম থাকে তাই টিকার বোতল বা হাত ভেজা কাপড় দিয়ে মুড়িয়ে নিতে পারেন.

১-২ ঘন্টার মধ্যে টিকা দেয়া শেষ করতে হবে.

যেখানে টিকা দেয়া হবে সেখানে পেপার বিছিয়ে নিতে যাতে টিকা নিচে পড়লে বুঝা যায় এবং পরে ফেলে দেয়া যায়.

টিকা আস্তে আস্তে দেয়া উচিত এবং কিছু সময় ধরে রেখে তারপর ছাড়া উচিত.

হাত ধুয়ে টিকা খোলার পর ডাইলোয়েন্টের সাথে মিশাতে হবে,চার লেখার মত করে হাত ঘুরাতে হবে আস্তে আস্তে.

 

কিল্ড টিকা ঃ

টিকা ফ্রিজ থেকে বের করে নরমালে বা হাল্কা গরম পানিতে রাখতে হবে যাতে ১৮-২০ডিগ্রি সেলসিয়াস হয়।

ভ্যাক্সিন গান টি গরম পানিতে ফুটিয়ে নিতে হবে যাতে জীবানূ না থাকে।জীবাণূনাশক দেয়া যাবেনা।

ডিম পাড়া মুরগিকে বিকালে টিকা দিতে হবে কারণ সকালে ডিম পাড়ে।

টিকা যদি বাহিরের লোক দেয় তাহলে কাপড় চেঞ্জ করা উচিত।

১০০০ মুরগির কিল্ড টিকা ১০০০ মুরগির চেয়ে বেশী মুরগিকে দিলে কাজ কম করবে বা করবে না।

কিল্ড টিকা বুকের বা পায়ের মাংসে বা গলায় চামড়ার নিচে দেয়া হয় যা  শোষিত হতে  ৩০-৪৫ দিন পর্যন্ত লাগতে পারে।।

####মুরগির টিকা পর্ব ২####

ফাউল পক্স এবং মেরেক্স

১.ফাউল পক্স

যে এলাকায় পক্স কম হয় সেখানে ১টি টিকা দিলেই চলে.

যেখানে ঝুকি বেশি মানে রক্ত চোষক পোকা মাকড় বেশি সেখানে ২টি টিকা দিতে হবে.

ডিম আসার কমপক্ষে ৪সপ্তাহ আগে টিকা দেয়া শেষ করতে হবে।

৬ সপ্তাহ বয়সের আগে বেশি দুর্বল করা(মাইল্ড  স্ট্রেইন) টিকা এবং ৬সপ্তাহ পরে কম দুর্বল করা   টিকা দিতে হয়।

টিকা দেয়ার ৭-১০ দিন পর টিকা দেয়ার জায়গায় ফুলে যায় মানে টিকা কাজ করছে বুঝা যায়.

টিকা কর্মসূচি

১ম টিকা ৬ সপ্তাহ,কিন্তু বাস্তবে ৪ সপ্তাহে দেয়া উচিত কারণ ৪ সপ্তাহে ও পক্স হতে পারে।
২য় টিকা ১১-১২ সপ্তাহ

পক্স হওয়ার পরও টিকা দেয়া যায়.কিন্তু বেশি আক্রান্ত হয়ে গেলে করার দরকার নেই।

২.মেরেক্স টিকা

এম ডি সি এফ এল(ইলানকো),
এইচ ভি টি(১২৬এফ সি স্টেইন),
সেরুটাইপ ৩,
চামড়ার নিচে দেয়া হয় হ্যাচারিতে. ০.২এম এল
অনেকে ১৪দিনের আগে ২য় টিকা দেয়

FDAH diluent মিশাতে হয় ২০০এম এল এফ ডি এ এল, ১০০০ ডোজ এর জন্য

মুরগির টিকা  পর্ব ৩

ব্রংকাইটিস

প্রথম টিকা হিসেবে শান্ত স্টেইন যেমন এইচ ১২০,ম্যাসাচুসেটস বা কানেক্টিকাট দিয়ে টিকা দিতে হবে যাতে কম প্রতিক্রিয়া হয়.

আমাদের দেশে এইচ ১২০ এবং এম ৪১ স্ট্রেইন বেশি চলে।

১ম এবং দ্বিতীয় টিকার মাঝে বিরতি হবে ২-৩ সপ্তাহ.
বুস্টার টিকার মাঝে বিরতি হবে ৪-৬ সপ্তাহ।

রানিক্ষেত এবং ব্রংকাইটিস টিকা একসাথে দেয়া যাবেনা.তবে কম্বাইন্ড হলে দেয়া যাবে.(এ সি আই এর ই  আই বার্ড এবং  আই বি + এন ডি)বিল) টিকা একসাথে দেয়া যায়)

সর্বশেষ লাইভ এবং কিল্ড টিকার মাঝে বিরতি হবে ৪-৬ সপ্তাহ.

ডিম পাড়ার ৪ সপ্তাহ আগে কিল্ড টিকা দিতে হবে.

ম্যাসাচুসেটস সেরুটাইপ ক্রস প্রটেকশন করে.

লাইভ টিকা লোকাল শ্বাসতন্ত্রে এবং সিস্টেমিক ইমোনিটি তৈরি করে কিন্তু কিল্ড টিকা সিস্টেমিক ইমোনিটি তৈরি করে.

পরবর্তীতে দিতে হবে বেশি প্রতিক্রিয়াশীল স্টেইনের টিকা.

এমন স্টেইনের টিকা হবে যা পরিবেশে আছে.

স্টেইন মিউটেশনের লাইভ টিকা দিলে অনেক সময় প্রতিক্রিয়া হয় যেমন গড়গড় শব্দ,মাথা ঝাড়া দেয়া,কনজাংটিবাইটিস এবং ই- কলাই আক্রমণ করে।

##যেসব কারণে প্রতিক্রিয়া হয় তা হল

ফাইন স্প্রে টিকা

মাইকোপ্লাজমা পজিটিভ ফার্মে টিকা দিলে.

ইমোনিটি খারাপ এবং অসুস্থ মুরগি হলে।

প্রথম টিকা হিসেবে কড়া স্টেইন(হট স্ট্রেইন) যেমন এইচ  ৫২, মাস ১১ এবং অস্টেলিয়ান টি দিলে.

দীর্ঘ সময় বিরতি দিয়ে টিকা দিলে.

টিকা প্রয়োগ পদ্ধতি ভাল না হলে.

বেশি বেশি মানে কম বিরতি দিয়ে করলে সি আর ডি হবে

বিভিন্ন বয়সে ডিমে আসা মুরগিতে লাইভ টিকা দিলে.

ফার্মে প্রচুর এমোনিয়া গ্যাস থাকলে এবং ধূলা থাকলে.

টিকা কর্মসূচি ১

১ম টিকা ১-২সপ্তাহ
২য় টকা ৪-৬সপ্তাহ
৩য় টিকা ৮-১৪সপ্তাহ
৪ থ টিকা ১৫-১৮ সপ্তাহ কিল্ড

টিকা কর্মসূচি ২

১ম টিকা ৪ সপ্তাহ
২য় টিকা ৮-১০সপ্তাহ
৩য় টিকা ১৪-১৮সপ্তাহ.

আমাদের দেশে প্রচলিত সিডিউল হল

১-৫ দিন  আই বি + এন ডি
২৫-২৭দিন   আইবি + এন ডি
৬০-৬৫দিন  আইবি +এন ডি
১৪-১৭সপ্তাহ  আইবি + এন ডি + ই ডি এস(মৃত)

আই বি তে আক্রান্ত হলেও এই টিকা দেয়া যায়.

### মুরগির টিকা পর্ব ৪###

ফাউল কলেরা এবং ই ডি এস

অল্প বয়সের মুরগিতে সাধারনত কলেরা হয় না তাই ৮সপ্তাহের পূর্বে টিকা দেয়ার দরকার নাই.

যে এলাকায় প্রাদুর্ভাব আছে সে এলাকায় দেয়া হয়.

১.কিল্ড টিকা

দুইটা টিকাই যথেষ্ট এবং দুইটা টিকার মাঝে কমপক্ষে ৪ সপ্তাহ বিরতি থাকবে.

দ্বিতীয়  টিকা দিতে হবে প্রডাকশন শুরুর কম পক্ষে ৪ সপ্তাহ আগে.

অনেক সময় টিকা কাজ করেনা কারণ ফিল্ড লেবেলের সেরোটাইপের সাথে যদি টিকার সেরোটাইপ না মিলে.

সেরোটাইপগুলি হল ১,৩,৪,৩*৪,৫,৭.

এরা ক্রস প্রকেটশন দেয়না।

ঠিকভাবে টিকা না দিতে পারলে বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয় যেমন প্রয়োগকৃত স্থানে ফুলে যায়,ঘাড় শক্ত হয় এবং মাথা ফুলে যায়.

ডিম পাড়া অবস্থায় মুরগিকে টিকা দেয়া যায় না.

তবে কেউ কেউ দেয় মুরগি অসুস্থ হওয়ার  পর দেয় এমন কি ৩০ও ৫৫সপ্তাহের দিকে ২টি কলেরা  টিকা দেয়।

টিকা কর্মসূচি

১ম টিকা ৮-১৪সপ্তাহ
২য় টিকা ১২-১৬ সপ্তাহ

২.লাইভ টিকা

স্টেইন হল
এম ৯, এটি প্রথমে দেয়া হয়.

পি এম -১এবং চি ইউ (CU)

সেরোটাইপ হল ৩*৪

ক্রস প্রটেকশন হয়.

মৃত টিকা দেয়ার পূর্বে লাইভ টিকা দেয়া ঠিক নয়. এতে মৃত টিকার কার্যকারিতা কমে যায়.

১ম টিকা ১২ সপ্তাহ আগে দিতে হয়.

লাইভ টিকা দেয়ার ৭দিন আগে এবং পরে এন্টিবায়োটিক দেয়া ঠিক নয়.

লাইভ টিকা দেয়ার ১০ দিনের মধ্যে অন্য কোন টিকা দেয়া যাবেনা.

এই টিকা দেয়ার পর অনেক সময় ক্রনিক আকারে কলেরা দেখা যায়.

টিকার কর্মসূচী

১ম টিকা ৮-১০সপ্তাহ
২য়টিকা ১৪-১৬ সপ্তাহ

ই ডি এস:(এগ ড্রপ সিন্ড্রোম)

যে এলাকায় প্রাদুর্ভাব আছে সেখানে দেয়া হয়.

ডিম উৎপাদনের ৪ সপ্তাহ পূর্বে একটা কিল্ড টিকা দেয়া হয়.

অধিকাংশ ক্ষেত্রে আই বি -এন ডি -ই ডি এস, আকারে দেয়া হয়.

১৫-১৮ সপ্তাহের মধ্যে একবার দেয়া হয়.

মুরগির টিকা :পর্ব ৫

রানিক্ষেত:
ভ্যাক্সিন স্ট্রেইন

১.প্রাইমারি এবং লেন্টোজেনিক

Y4,F strain,Ulster,VG/GA,B1B1,Hitchner,lasota
মাইকোপ্লাজমা পজিটিভ হলেও দেয়া যায়.
টাইটার তুলনামুকভাবে কম উঠে.
.

২.সেকেন্ডারি এবং মেসোজেনিক
Roakin,kimbar,Mukteswar,H strain,komarov
মাইকোপ্লাজমা পজিটিভ হলে দেয়া ঠিক নয় কারণ তাতে রিয়াকশন হয়.
এই টিকায় ভাল টাইটার উঠে.

৩.killeD,কিল্ড বা ইনএক্টিভেটেড

লাসোটা,কিম্বার ও মুক্তেশরর
সবচেয়ে বেশি চলে.

যেসব জায়গায় রানিক্ষেতের তীব্রতা বেশি সেসব জায়গায় এবং কিল্ড টিকা তৈরিতে মেসোজেনিক স্টেইন ব্যাবহার করা হয়.

লাইভ টিকা প্রয়োগের পর অনেক সময় প্রতিক্রিয়া দেখা যায়.যেমন
গড়গড় শব্দ,হাচি আসা,চোখের কোনায় পিচুটি এবং ই কলাই.

টিকা দেয়ার ৩-৫ দিন পর দেখা যায়
যদি জটিল না হয় তাহলে ৩-৫ দিনের মধ্যে প্রশমিত হয়.

যেসব কারণে প্রতিক্রিয়া বেশি হয় তা নিম্ন রুপ:
মাইকোপ্লাজমা পজিটিভ হলে.

ইমোনিটি খারাপ হলে.

প্রথমে মেসোজেনিক টিকা দিলে.

সঠিকভাবে টিকা না দিলে.

বিভিন্ন বয়সের ডিম পাড়া মুরগি একত্রে রেখে লাইভ টিকা একত্রে প্রয়োগ করলে.

ফার্মে এমোনিয়া বা ধূলাবালি বেশি থাকলে.

(কিল্ড টিকার আগে লাইভ টিকা দেয়া ভাল)
প্রথম এবং দ্বিতীয় টিকার মাঝের সময় হবে ২-৩ সপ্তাহ;কারণ প্রথম টিকার রোগ প্রতিরোধ সাড়ার স্থায়ীত্ত কম.পরবরতিতে প্রয়োগকৃত টিকাগুলো থেকে দ্বিতীয় পর্যায় এর রোগ প্রতিরোধ সাড়া জাগে এবং দীঘ্র সময়ব্যাপী রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা অটুট থাকে.ব্রুষ্টার টিকা গুলোর মধ্যবর্তী কালীন সময় দীর্ঘ হয়.অর্থাৎ ৪-৬ সপ্তাহ.

যে এলাকায় তীব্র রানিক্ষেত রোগ আছে সেখানে মেসোজেনিক স্টেইন দিয়ে টিকা দেয়া যেতে পারে.

ফ্লকের সমস্ত মুরগিতে একই দিনে টিকা দেয়া উচিত.

তিন সপ্তাহ বয়সের পূর্বে মুরগিতে সফলভাবে গড়ে তোলা সমস্ত দেহের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার সহিত মাতা হতে প্রাপ্ত এন্টিবডি বাধাপ্রাপ্ত হতে পারে.এই বাধা প্রদান প্রক্রিয়াশ্বাসনালীতে  স্থানীয়ভাবে তৈরি হওয়া রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থায় তাৎপর্যপূর্ণ প্রভাব ফেলে না.

লাসোটা টিকা বেশি বেশি মানে কম বিরতি দিয়ে করলে সি আর ডি হয়.

রানিক্ষেত টিকার সিডিউল:

লেয়ারের জন্য

কর্মসূচি :১

১ম টিকা ২ সপ্তায়
২য় টিকা ৪ সপ্তায়
৩য় টিকা ৮-১২ সপ্তায়
৪য় টিকা ১৫-২০ সপ্তায়

কর্মসূচি :২
১ম টিকা ৪ সপ্তায় লাইভ
২য় টিকা ১০সপ্তায় লাইভ
৩ থ টিকা ১৬-১৭ সপ্তায় কিল্ড
৫ম টিকা ৪০-৪৫ সপ্তায় কিল্ড

কর্মসূচি ৩

১ম টিকা ১-২সপ্তায়
২য় টিকা ৬ সপ্তায় লাইভ
৩য় টিকা ১১ সপ্তায়
৪থ টিকা ১৫-১৮সপ্তায় কিল্ড

কর্মসূচি ৪

১ ম   ৬ সপ্তাহ
২ য়  ১০-১২ সপ্তাহ
৩ য়  ১৫-১৮ সপ্তাহ কিল্ড
৪ থ  ৪০-৪৬ সপ্তাহ কিল্ড

বিভিন্ন প্রেক্ষাপটে উপরের  টিকা দিতে হয় যা দেশে প্রচলিত না।

বাংলাদেশে প্রচলিত শিডিউল হল

১-৫ দিন  আই বি + এন ডি
৫-১০ দিন  এন ডি + আই বিডি কিল্ড

২৫-২৮দিন  আই বি + এন ডি

৬০-৬৫ দিন এন ডি
১৪-১৮ সপ্তাহ  আই বি + এন ডি+ ই ডি এস কিল্ড সাথে এন ডি লাইভ.
কিল্ড টিকা দেয়ার ৪ সপ্তাহ আগে লাইভ দেয়া থাকা উচিত.

ডিম পাড়া মুরগিকে টিকা দেয়ার ৭-১০ দিন পর টাইটার উঠে (লাইভ টিকার ক্ষেত্রে.)
কিল্ড টিকার ক্ষেত্রে ২০-২৫ দিন লাগে.

নোট: সব কিছুই পরিস্থিতি অনুযায়ী পরিবরতনশীল

. ##টিকা পর্ব ৬##

গাম্বোরু:

টিকার নির্দিষ্ট কোন তালিকা হয়না’
এটা নির্ভর করে ফ্লকের অবস্থা,স্থানীয় রোগের প্রাদুর্ভাব এবং আবহায়াওয়ার উপর.

প্রধানত তিন ধরনের টিকা
১.ইন্টারমেডিয়েট(বারসাইন ২,গাম্বোরু ২)
২.ইন্টারমেডিয়েট প্লাস (বারসাইন প্লাস)
৩.হট(২২৮ই,আইবিডি ব্লেন)

স্ট্রেইন  হল
১.ভেরিয়েন্ট
২.ক্লাসিকেল বা স্ট্যান্ডাড
৩.মিসিসিপি

এন্টিবডির হাফলাইফ : হাফ লাইফ হল সিরাম মধ‍্যস্থিত এন্টিবডির অর্ধেক পরিমান যে সময়ের মধ্যে কমে যায় তাকে বুঝায়.

টিকা কখন দিব তা নির্ভর করে

১.পেসিভ এন্টিবডি কমে যাবার হারের উপর
২.এন্টিবডির সমতার উপর
৩.জীবাণুর তীব্রতার উপর
৪.টিকার প্রয়োগ পদ্ধতির উপর
৫.কি ধরনের টিকা
৬.বাচ্চার মানের উপর

গাম্বোরু টিকার টাইটার উঠতে সময় লাগে

৪-৫ দিন.

#বাচ্চার এন্টিবডির সমতা ভাল হলে
১৭ দিনে ১টি টিকাই যথেষ্ট

#বাচ্চার সমতা খারাপ হলে

১ম টিকা ১১তম এবং  ২য় টিকা১৫তম দিনে

#রোগের তীব্রতা খারাপ হলে

ইন্টারমেডিয়েট প্লাস ১০তম দিনে

ইন্টারমেডিয়েট ১৮তম দিনে

#ফিল্ড চ্যালেঞ্জ বেশি হলে

ব্রয়লারে

১ম টিকা ৮তম দিনে

তা নাহলে ১ম টিকা
১৮তম দিনে.

লেয়ারের ক্ষেত্রে
১ম টিকা ১৫তম দিনে এবং
ব্রয়লারের ক্ষেত্রে
১১তম দিনে টিকা শুরু করতে হয়.
কারণ
লেয়ারের এন্টিবডির হাফ লাইফ ৬-৭দিন
ব্রয়লারের ৩-৪দিন.

একটা ইন্টারমেডিয়েট টাইপ টিকা দেয়ার
পর ইন্টারমেডিয়েট প্লাস বা হট টিকা দেয়া উচিত.

ইন্টারমেডিয়েট প্লাস:

মেটারনাল এন্টিবডি থাকা অবস্থায় দেয়া যায়।
ভাল টাইটার উঠে।

ইন্টারমেডিয়েট:
বারসার ক্ষতি হয়না
রানিক্ষেতের টাইটার পরিবরতন হয়না.

হট টিকা
যেসব জায়গায় অতিতীব্র গাম্বোরু ভাইরাস সেসব জায়গায় ব্যবহার করা হয়.

বার্সার ক্ষতি করে.

রানিক্ষেতের টাইটার কমে.

ব্রিডারে

তিনটা লাইভ এবং ১-৩ টি কিল (মৃত) টিকা দেয়া হয়.

সেসব ব্রিডার ফার্মে গাম্বোরু টিকা ভালভাবে দেয় সেসব ফার্মের বাচ্চায় গাম্বোরু কম হয়.

টিকা কর্মসূচী

ব্রয়লার

১০-১৩দিন আইবি ডি বা আই বি ডি প্লাস

১৭-২০ আই বি ডি বা আই বি ডি প্লাস।

লেয়ারের জন্য

৩-৭দিন  আই বি ডি + এন ডি( কিল্ড)
১০-১৩দিন  আই বি ডি
১৮-২১ আই বি ডি বা আই বি ডি প্লাস

টিকার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট বলতে কোন কথা নেই’ তাই যা লিখলাম তা পরিবর্তনশীল।

মুরগির বাচ্চায় মাতা হতে প্রাপ্ত এন্টিবডির দ্বারা বাচ্চাতে রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা:

রোগের নাম     প্রতিরোধ ব্যবস্থা

১.গাম্বোরো ++

২.রানীক্ষেত  ++

৩.রিওভাইরাস ++

৪.এভিয়ান এনসেফালাইটিস ++

৫.ব্রংকাইটিস +

৬.মাইকোপ্লাজমা –

৭.ফাউল পক্স –

৮.ল্যারিংগোটাইটিস(আই এল টি) –

৯.মেরেক্স –

মুরগির ইমোনিটি(রোগ প্রতিরোধ)

ইমোনিটি হল মুরগির প্রতিরক্ষা যা ইমোইন সিস্টেম দ্বারা তৈরি হয়.

দুই ধরনের অংগ দ্বারা ইমোইন সিস্টেম তৈরি হয়.
ক.প্রাইমারি

বারসা
থাইমাস

খ.সেকেন্ডারি

হাডেরিয়ান গ্যান্ড(চোখ)
সিকাল টন্সার

প্যায়ারস প্যাস(ইন্টেস্টাইন)
মাইকেলস ডাইবার্টিকোলাম

ইমোনিটি দুই ধরনের
১.স্পেসিফিক বা একোয়াড বা এক্টিভ

২.নন স্পেসিফিক বা ইনেট বা ন্যাসারাল বা ইনহেরেন্ট বা প্যাসিভ:
মুরগির মাতা হতে বাচ্চাতে যে ইমোনিটি আসে.

স্পেসিফিক বা এক্টিভ:
কোন এন্টিজেন বা জীবাণূ মুরগির শরীরে ঢুকার পর যে ইমোনিটি তৈরি হয়.

এটি দুই প্রকার

ক.সেল মেডিয়েটেড:

এন্টিজেন ঢুকার পর মেক্রফেজ স্টিমুলেট হলে টি হেল্পার সেলের মাধ্যমে টি লিম্ফুসাইট হতে লিম্পোকাইন্স(প্রায় ৯০টি) (সাইটুকাইন্স) তৈরি করে.

এখানে দুই ধরনের সেল তৈরি হয়

টি মেমোরি
সাইটুটক্সিস টি সেল:এটি সেল এর ভিতরের ভাইরাস কে আক্রমণ করে.

খ.নন সেলোলার বা হিউমোরাল
এন্টিজেন শরীরে ঢুকার পর মেক্রুফেজ স্টিমুলেটেড হবার পর বি লিম্পুসাইট তৈরি হয় এবং লিম্পুকাইন্স তৈরি হয়(ইন্টারফেরন্স এবং ইন্টারলিউকিন্স).

ফলে বি মেমোরি এবং প্লাজমা সেল তৈরি হয়.

প্লাজমা সেল হতে এন্টিবডি তৈরি হয় এবং প্রত্যেক এন্টিজেনের বিরুদ্ধে কোষীয় রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা সৃস্টি হয়.
যখন এন্টিজেন প্রয়োগে রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা সঠিকভাবে সাড়া জাগায় তখন অন্য লিম্পুসাইট যেমন অবদমনকারি (suppressor) টি লিম্পুসাইট এই পদ্ধতি বন্ধ করে দেয়.

রোগ প্রতিরোধ সাড়া মেমোরী কোষ তৈরি করে যাদের এই এন্টিজেন সনাক্ত করার সামর্থ্য আছে. তাই বুস্টার টিকায় তাড়াতড়ি টাইটার উঠে.

এন্টিবডি হল গ্লাইকোপ্রোটিন যা ইমোনোগ্লোবিন নামে পরিচিত.

এগুলো পাওয়া যায় রক্তে,টিস্যু ফ্লুইডে এবং সেক্রেশনে.

টোটাল প্লাজমা  প্রোটিনের ২০% ইমোনোগ্লোবিন  পাওয়া যায়

মুরগির তিন ধরনের ইমোনোগ্লোবিন

আই জি এম(Ig M):
তৈরি হতে ৪-৫ দিন লাগে এবং ১০-১২ দিন থাকে.5-10%.এগুলি সবচেয়ে তাড়াতাড়ি আসে.

আই জি জি(Ig G)

এটিই সবচেয়ে গুরুত্বপূরণ.(৭৫%)
রক্তে এবং ইন্টা ও এক্সা ভাস্কুলারে পাওয়া যায়।
তৈরি হতে ৪-৫ দিন লাগে এবং ২১-২৫ দিন থাকে.

আই জি এ(Ig A)
সেক্রেটরি এন্টিবডি বলা হয়.এগুলি পিত্ত,চোখ,মিউকাস এবং শ্বাসনালিতে তৈরি হয়.তৈরি হতে ৫দিন লাগে.লোকাল প্রতিরক্ষা তৈরি করে.

মুরগিতে ইমোনুসাপ্রেশন কিভাবে হয়:

নন স্পেসিফিক বা ইনেট ইমোনিটি্র সাথে জড়িত  গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলি

জেনেটিক ফ্যাক্টর
বডি তাপমাত্রা
এনাটমিক ফিচার
নরমাল মাক্রোফ্লোরা
রেস্পিরেটরি ট্রাকের সিলিয়া
রোগের প্রতি রেজিস্টেন্ড সম্পন্ন মুরগি বাচাই করা.

ভাল ব্যবস্থাপনা না হলে নিম্ন লিখিত সমস্যা গুলি হতে পারে.
অযথা এন্টিবায়োটিক ব্যবহার
মাইকোটক্সিন
খারাপ স্যানিটেশন
খাবারের পুস্টিমান ভাল না হলে জীবাণূ মুরগির প্রতিরোধ ব্যবস্থা ভেংগে ফেলে.

ইমোনিটি ভাল না হলে

বার্সা ছোট হয়
সমতা নষ্ট হয়
মৃত্যহার বাড়ে
মুরগির পারফরমেন্স খারাপ হয়
টিকার ভাল এন্টিবডি তৈরি হয়না
জী্বাণূর আক্রমণ বেড়ে যায়.

কেন ইমোনিটি খারাপ হয়

জীবাণূর আক্রমণ
ব্যবস্থাপনার হঠাৎ পরিবরতন
(খাবার,পানি এবং তাপমাত্রা খুব বেশি বা কম)
বায়োসিকিউরিটি খারাপ হলে
পুস্টিমান খারাপ হলে

পরিবেশ
বেশি তাপমাত্রা বা যে কোন ধকলে স্টেস হরমোন তৈরি হয় যেমন করটিকোস্টেরন যা স্পিলন, বারসা ও থাইমাসের ক্ষতি করে ফলে ইমোনিটি কমে যায়

পুস্টিমান খারাপ হলেও রোগের  আক্রমণ বেড়ে যায়

ভাল জীবানু কমে গেলে হজম কম হয় এবং এমোনিয়া বেড়ে আয় ফলে শ্বাসনালির সিলিয়া এবং ইপিথেলিয়াম নষ্ট হয় তাই ইমোনিটি কমে.

পুস্টি

ইমোনিটি সম্পন্ন মুরগি সহজে রোগে আক্রান্ত হয়না
সামান্যতম পুস্টিমানের ঘাটতি হলে মুরগি রোগের প্রতি সেনসিটিভ হয়ে যায় কারণ মুরগি ইমোনিটি তৈরি করতে পারেনা।

মুরগি কম খাবার খেলে কম পুস্টি পায় ফলে ইমোনিটি কম হয়.

ভিটামিন

ভিটামিন ই

এটি সেল মেমব্রেন রক্ষা করে.
ফ্যাট,তেল এবং প্রাণী প্রোটিন খেকে ফ্রি রেডিকেল তৈরি হয় যা ইমোন অংগ এবং সেল মেম ব্রেন ক্ষতি করে.
ভিটামিন ই ফ্রি অক্সিডেটিভ বা ফ্রি রেডিকেলকে দূর করে রোগপ্রতিরোধক অংগকে রক্ষা করে.
ভিটামিন ই এরাসিডনিক পরিপাক করে বাই সাইক্রুক্সিজিনেজ এবং লিপোক্সিজিনেজ দ্বারা যা প্রোস্টাগ্লান্ডিন এবং লিউকোটিয়েন্সস তৈরি করে.

ভিটামিন শ্বেেতকণিকা এবং ক্ষত শুকাতে সাহায্য করে,এটির ঘাটতি হলে ধকলের সময় করটিকোস্টেরন তৈরি হয় যা ইমোনিটি নষ্ট করে.

ভিটামিন এ

ভিটামিন এ অভাব হলে এন ডি টাইটার এবং টি সেল রেসপন্স কমে যায় ফলে রানিক্ষেত,নেক্রোটিক এন্টারাইটিস,আমাশয়,আই বি এবং মাইকোপ্লাজমা বেড়ে যায়.

এমাইনো এসিড আরজিনিন ইমোনিটি ভাল করে বাই মেক্রোফেজ হতে নাইট্রিক এসিড তৈরি করার মাধ্যমে.ফলে

লিমফোসাইট বেড়ে যায়
থাইমাসের ওজন বেড়ে যায়
ক্ষত শুকায়
টিউমার ভাল হয়

অতিরিক্ত মেথিওনিন ইমোনিটি কমিয়ে দেয়.

তাছাড়া জিংক,সেলেনিয়াম, রিবোফ্লেবিন,পেন্টোথেনিন এবং পাইরুডক্সিন ইমোনিটি বাড়ায়.

বায়োসিকিউরিটি

বায়োসিকিউরিটি খারাপ হলে জীবাণূ আক্রমণ করে ধকল তৈরি করে ফলে ইমোনোসাপ্রেশন হয়.
যেমন
আই বি ডি,চিকেন ইনফেক্সাস এনিমিয়া,মেরেক্স,রিও ভাইরাস,এন ডি,এ আই বংশ বৃদ্ধি করে রোগপ্রতিরোধক অংগে.

মাইকোটক্সিন
ভুট্রা,গম,চাল এবং পিনাট মিলের ক্ষতি করে.
এসপারজিলাস হতে আফ্লাটক্সিন তৈরি হয়.
এটি ইমোইন সেলকে ধংস করে এন্টিবডি প্রডাকশন কমিয়ে দেয় ফলে টিকা ভাল কাজ করেনা,
এটি ফ্যাগোসাইটোসিস কমিয়ে দেয় এবং বারসা,স্পিলন,থাইমাসকে ধংস করে ও হেপাটোটক্সিসিটি করে.

পেনিসিলিয়াম হতে অক্রাটক্সিন তৈরি হয়, এটি সেল মেডিয়েটেড এবং হিউমোরাল ইমোনিটি নষ্ট করে ও নেফ্রোটক্সিক.

ফুসারিয়াম হতে টাইকু্থেসেনস তৈরি হয় যা ইমোনিটি নষ্ট করে.
এটি স্টং টিসু ইরিট্রেং এবং মিউকোসাল মেমব্রনের ইন্টিগ্রিটি নষ্ট করে.
প্রোটিন তৈরিতে বাধা দেয় ফলে এন্টিবডি তৈরি হয়না এবং ইমোনুসাপ্রেসন হয়.

এই ইমোনোসাপ্রেশন দূর করা যাবে যদি

ভাল ব্যবস্থাপনা হয়
সঠিক পরিবেশ হয়
ভাল পুস্টিমান সম্পন্ন খাবার হয়
টিকার মাধ্যমে রোগ দূর করা যায়.

About admin

Avatar

Check Also

ব্রয়লার পালন ব্যবস্থাপনা,রোগ ব্যাধি ও টিকার সিডিউল

  খাবার পাত্র:১-৭ দিন ১০০টির জন্য ১ টি পানির পাত্র ১০০টির জন্য ১ টি প্রথম ...

Translate »
error: Content is protected !!