Breaking News
ডিভিএম
ডিভিএম

Doctor of Veterinary Medicine (ডিভিএম) নিয়ে বিস্তারিত

Doctor of Veterinary Medicine (ডিভিএম) নিয়ে বিস্তারিত

Doctor of Veterinary and Medicine —–
সাবজেক্ট রিভিও:

১. অন্য পিউর কিংবা অন্যান্য সাবজেক্টে অনার্স পড়ার চাইতে ভেটেরিনারী নি:সন্দেহে একটি ভালো পছন্দ হতে পারে।
২. WHO অনুযায়ী শুধুমাত্র মেডিকেল,ডেন্টাল ও ভেটেরিনারি স্টুডেন্টরাই ডিগ্রী শেষে নামের আগে ডাক্তার শব্দটি বসানোর যোগ্যতা অর্জন করে।
৩. ভেটেরিনারি নিশসন্দেহে একটি ব্যয়বহুল সাবজেক্ট,একজন ভেটেরিনারি ডাক্তার তৈরিতে সরকারের প্রচুর ফেসিলিটি ও ইনভেষ্ট করতে হয় যা পাবলিক ইউনিভার্সিটি ছাড়া পড়া সম্ভব নয়।
৪. একজন ভেটেরিনারি ডাক্তার হতে হলে তাকে কঠোর পরিশ্রমী ও মেধাবী হতে হয়,,এখানে পড়তে হলে যে সব বিষয় অধ্যায়ন করতে হয় তা হলো :

এনাটমি

হিস্টোলজ

প্যাথলজি,

প্যারাসাইটোলজি,
ফিজিওলজি

বায়োক্যামিস্ট্রি,

ফার্মাকোলজি ও থেরাপিউটিক্স,

টক্সিকোলজি,

মাইক্রোবায়োলজি,

ব্যাক্টেরিওলজি,

ভাইরোলজি,
সেরোলজি,

মেডিসিন,

সার্জারী,

ভেটেরিনারি এপিডিমিওলজি,

গাইনীকোলজী ও অবস্ট্রাট্রিক্স,

থ্রেরিওজেনোলজি,
রেডিওলজী

ল্যামনেস এন্ড সাউন্ডন্যাস,

অপারেটিভ সার্জারী,
পরিসংখ্যান,

গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান,

কৃষি অর্থনীতি,

মার্কেটিং,

কৃষিসম্প্রসারন বিদ্যা,

ভেটেরিনারি পাবলিক হেলথ সহ সম্বনিত
হাসবেন্ডারী সাবজেক্ট সমূহ যেমন:

এনিমেল সাইন্স,

এনিমেল নিউট্রিশন,

এনিমেল জেনেটিকস এন্ড ব্রিডিং,

পোল্ট্রিসাইন্স,

পোল্ট্রি নিউট্রিশন,

ডেইরী সাইন্স,

ডেইরী প্রোডাক্ট টেকনোলজি ,

হেচারি মেনেজমেন্ট সহ প্রভৃতি বিষয়াদি।
৫. একজন ভেটেরিনারি গ্রাজুয়েটকে এসব কঠিন সাবজেক্ট আয়ত্তস্হ করার পাশাপাশি প্রাণি জগতের হিউম্যান স্পিসিস সহ প্রায়
১৪-১৫ টি স্পিসিস সম্বন্ধে জ্ঞান রাখতে হয় যা নিসন্দেহে একটি টাফেষ্ট ও হার্ডেষ্ট সাবজেক্ট।
জেনে রাখা ভালো:প্রাণিজগতের প্রায় সকল এনিমেলের এনাটমি ও ফিজিওলজি more অর less simillar তাই ‘Doctor of Human
medicine-DHM’ এবং ‘Doctor of veterinary medicine-DVM ‘কে আলাদা করে দেখার সুযোগ নেই।

মেডিকেল সাইন্সের ক্ষেত্রে ভেটেরিনারি ও মেডিকেল কোন আলাদা বিষয় নয়
শুধুমাত্র স্পিসিস importance অনুযায়ী কিছু কিছু বিষয় মেডিকেল ও ভেটেরিনারিতে আলাদা করে পড়তে হয় তাছাড়া বাকি সব বিষয়গুলো সবই এক।
৬.ভেটেরিনারি পড়াশোনার শেষ বছরে কিছু কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে দেশের বাইরে ইন্টার্ণশীপের সুযোগ রয়েছে, যা ছাত্র-
ছাত্রীদের ভবিষ্যৎ জীবন উন্নয়নে অনেক ভূমিকা রাখে।
* কারিকুলামের অংশ হিসেবে ভেটেরিনারি স্টুডেন্টদের ৬ মাস ইন্টার্নী করতে হয়। (ইন্টার্নী ভাতা ১৫,০০০ টাকা)।
*এছাড়া টেকনিক্যাল সাবজেক্ট হওয়ায় ভেটেরিনারি UGC কর্তৃক স্টাইফেনের অন্তর্ভূক্ত ।
৭. বর্হিবিশ্বে scholarship এর দ্রুত সুযোগ ভেটেরিনারি মত অন্য কোন subject এ সম্ভব নয়।
৮. দেশের বাইরে বিভিন্ন দেশে যেমন অস্ট্রেলিয়া,নি উজিল্যান্ড, জাপান,কানাডা, ফিনল্যান্ড, আমেরিকাসহ উন্নত দেশগুলোতে সম্মানজনক চাকুরির সুযোগ ভেটেরিনারী
পেশার ক্ষেত্র সহজ যা ইন্টারনেট ভিজিট করলেই বোঝা যাবে। এ সব দেশ গুলোতে উন্নত বেতনের লোভনীয় অফার রয়েছে ,পদ ও যোগ্যতা অনুযায়ী লাখ লাখ টাকা উপার্জন করা যায়।
৯. দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় হতে একই common subject হতে প্রচুর ছাত্র-ছাত্রী এক সাথে বের হয়, ফলে চাকুরির
বাজারে স্বল্প বেতনেরও চাকুরি খুঁজতে জুতার তলা ক্ষয় করতে হয়, অন্য দিকে veterinary graduate দের চাকুরির বেতন শুরু হয়
৩০,০০০-8০,০০০ টাকার মধ্যে ।
১০. DVM পাশ করার পর নিজস্ব সাবজেক্ট সহ যেকোন উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে microbiology, biochemistry,pharmacy সহ অন্য Subject এ MS করার সুযোগ রয়েছে।
১১. BCS এ Veterinary graduate দের জন্য special cota রয়েছে। এছাড়া BCS এ VET রা অনান্য ক্যাডারেও প্রতিযোগিতা করতে পারবে।
১১. বিভিন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান, যেমন ICDDRB,BLRI, LRI, FRI
এগুলোতে বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করার ও বিদেশ ভ্রমনের সুযোগ রয়েছে।
১১. সেনাবাহিনীতে ভেটেরিনারি ক জন্য রয়েছে নির্দিষ্ট কোর যার নাম RVFC(Remount Veterinary and Farm core) এবং
বছরে ২ বার এ সুযোগ পাওয়া যায় সরাসরি সেকেন্ড লেফটেনেন্ট হিসেবে।
১২. আন্তর্জাতিক এবং দেশীয় ঔষধ কোম্পানীগুলোতে ভেটেরিনারিয়ানদের জন্য নির্দিষ্ট আসন রয়েছে।
১৩. বিভিন্ন livestock product company যেমন-Ice cream, juice, butter, candy, cola, milk & meat industry তে কাজ করার অপার সুযোগ।

বিভিন্ন কোম্পানী যেমন- Pran, Milk vita, Arong,Aftab, RD Milk, BRAC meat, Bengal Meat ইত্যাদি কোম্পানীতে ৬টি বোনাসসহ গাড়ী ও বাড়ি সুবিধা সহ হেন্ডসাম সেলারি ৩০,০০০-৪০,০০০ টাকার চাকুরির সুযোগ ।
১8. এছাড়া বিভিন্ন NGO/ project এ available কাজ করার সুযোগ রয়েছে। যেমন- CLP PKSF, BRAC ইত্যাদি বেতন -২৫,০০০-৩০,০০০ টাকার মধ্যে।
১৫. দেশের বিভিন্ন feed mill,hatchery এ আকর্ষণীয় বেতনের চাকুরীর সুযোগ রয়েছে। যেমন –Kazi farms,CP,Diamond,Quality
Aftab, Paragoan, Nourish, Anchor feeds, Dhaka hatchary, Eggs & Hens, Rafid,Universal, Goalanda, , Bangladesh hatchery মিলে প্রায় ২০০ প্যারেন্টস স্টোক,৮টি জি পি ফার্ম  ও ১০০ বেশি ফিডমিল এ চাকরির সুযোগ ইত্যাদি।
১৬. নিজস্ব প্যাক্টিস ও পেট ডক্টর হিসেবেও দেশে বিদেশে সম্মানজনক জীবিকার সুযোগ রয়েছে ।বলা বাহুল্য একজন ভেটেরিয়ানের ডাক্তারি থেকে মাসিক আয় একজন হিউম্যান ডাক্তারের চেয়ে কোন অংশে কম নয়।
১৭. অনেকের মধ্যে একটা থাকে যে, confusion ভেটেরিনারি পড়ে অন্য কোন চাকরী করা যাবে কিনা? তাদের জন্য বলি চিন্তার কোন কারণ নাই।কেউ যদি ডাক্তারী পেশা হিসেবে নিতে ইচ্ছুক না হয়,তাহলে এই গ্রাজুয়েশন ডিগ্রি দিয়ে বিভিন্ন অফিস, পুলিশ,ব্যাংক ,নন ক্যাডার পদে মর্যাদাপূর্ন চাকরী করা যাবে।
১৮. বিভিন্ন চিড়িয়াখানায়, সাফারী পার্কে ,সুন্দরবনে বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও চিকিৎসক হিসেবে চাকুরীর সুযোগ রয়েছে।
১৯. বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ম্যাগাজিন,পাবলিকেশন,organization যেমন UNESCO,UNICEF,WHO, UN,FAO তে চাকরীর সুযোগ রয়েছে।
২০. বিভিন্ন আন্তর্জাতিক Media যেমন- Animal Planet,Discovery, National Geography এগুলোতে Hand some salary দেয়।

কালেক্টেড

এম বি বি এস থেকে ডি ভি এম একটু কঠিন  কারণ

১।ডি ভি এম রা অনেক গুলো স্পিসিস নিয়ে পড়াশুনা করে আর হিউম্যান ডাক্তার রা শুধু মানুষ নিয়ে পড়াশুনা করে।

২।মানুষের ডাক্তার বসে থাকে আর রোগি চলে আসে আর ডিভিএমদের বেশি ভাগ ক্ষেত্রে রোগির কাছে গিয়ে চিকিৎসা করতে হয়।

৩।এম বি বি এস ডাক্তাররের ক্ষেত্রে রোগী বলার পর ডাক্তার রোগ নির্ণয় করে বা টেস্টের পর আর ডি ভি এম এর ক্ষেত্রে রোগীরা  কিছু বলতে পারেনা  ডাক্তারকে বুঝে নিতে হয়।খামারির সাথে কথা বলতে হয় বা পোস্ট মর্টেম করতে হয়।

আমি ডাঃ মো সোহরাব হুসাইন ( ডি ভি এম) বলছি  খামারীর সাথে ২-৩মিনিট কথা বলে ৯৫% রোগ নির্ণয় করি বাকি ৫% পোস্ট মর্টেম বা টেস্ট করে।

৬০% রোগির ক্ষত্রে খামারীর সাথে কথা বলেই রোগ নির্ণয় করা হয়ে যায়  এবং পোস্ট মর্টেম করার পর বা টেস্ট করার পর রিজাল্ট তাই হয়।

এই ক্রেডিট আমার না আমার সৃস্টি কর্তা আল্লাহর।

৪।এম বি বিএস রা ডি  ভি এমদের   সম্পর্কে তেমন কিছু জানে না ,শুনলে হা করে থাকে মনে হয় মঙ্গল গ্রহ থেকে কিছু ক্ষণ আগে নেমেছে।

বিভিন্ন সময় আমি  ডাক্তার দেখাইতে গিয়া এবং বিভিন্ন বন্ধু বান্ধব যারা এম বি বি এস ডাক্তারের কাছে গেছে তাদের অভিজ্ঞতা থেকে তাই মনে হয়েছে।

৫।এম বি বি এসদের ভাব মূর্তি সমাজে আগে থেকেই  ছিল কিন্তু ডি ভি এম দের ক্ষেত্রে সেই রকম প্রচারণার অভাবে সাধারণ মানুষের কাছে এখনো পরিচিত না।

৬।সাধারণ মানুষ ও এম বি বি এস ডাক্তার যারা সকালে ডিম ,দুপুরে মাংস আর রাত্রে যে দুধ টা খাচ্ছেন তা কিন্তু ডি ভি এম দের অবদান তাই তাদের কে  জানা ও মনে রাখা উচিত।

৭।তাই কেউ কাউকে বড় না ভেবে সমান ভাবাই উচিত।গরুর ডাক্তার বলে অবহেলা করার সুযোগ নাই।

এখন অনেক এগিয়ে গেছে ডি ভি এম ।

কেউ পেট এনিম্যাল(কুকুর, বিড়া্‌ল, খরগোশ) ,কেউ ব্রিডার ফার্ম,লেয়ার,সোনালী ,ব্রয়লার),কেউ গরু ছাগল,কেউ পোল্ট্রির প্যাক্টিস করে।

এখন অনেক কোম্পানী টেস্টের জন্য ল্যাব ( প্রায়৩৫টি )করেছে  এমন কি ব্যক্তিগতভাবেও  কেউ কেউ ল্যাব করতেছে (১৪টি ল্যাব)।

এক সময় হয়ত প্রতি জেলায় কয়েকটি  করে ল্যাব হবে।

নোটঃজানার জন্য

সাধারণ মানুষ যে লেয়ার ও ব্রয়ালার খায় তাদের কিন্তু দাদা দাদী বা নানা নানী এমন কি দাদা দাদীর মা বাবা ও আছে।

বাংলাদেশে শুধু দাদা দাদী পর্যন্ত আছে দাদীর মা বাবা বাংলাদেশকে দিবে না।

মা বাবা বা দাদা দাদিকে ফ্রান্স ,আমেরিকা  ,ইন্ডিয়া ও ই ংল্যান্ড থেকে আমদানী করতে হয়।

Please follow and like us:

About admin

Check Also

খামারীদের কেমন পরামর্শ দেয়া উচিত,কোনটা উচিত না এবং কিছু আলোচনা।

খামারীদের কেমন পরামর্শ দেয়া উচিত,কোনটা উচিত নাএবং কিছু আলোচনা। খামারীদের পরামর্শ দিতে গিয়ে যাতে সেটা …

Translate »
error: Content is protected !!