Breaking News
বোভাইন ইফিমেরাল ফিভার
বোভাইন ইফিমেরাল ফিভার

বোভাইন ইফিমেরাল ফিভার

বোভাইন ইফিমেরাল ফিভার
Bovine Ephemeral Fever

বোভাইন ইফিমেরাল ফিভার এটি একটি সংক্রামক ভাইরাস জনিত রোগ।

এ রোগে গরু বাছুরের হঠাৎ করেই কাঁপুনি দিয়ে জ্বর হয়ে থাকে এবং তিন দিন স্থায়ী হয়।

কমবেশি সব বয়সের গরুতে হলেও প্রাপ্ত ও বয়ষ্ক গরুতে অতি সংবেদনশীল।

প্রচলিত নাম হিসাবে একে তিন দিনের জ্বর (Three Days Sickness) বলা হয়।

সাধারনত বসন্ত ও গ্রীষ্মকালে রক্ত শোষক কীট-পতঙ্গ মশা মাছি ডাঁশ দ্বারা আক্রান্ত গরু থেকে সুস্থ গরুতে ছড়িয়ে থাকে।

এই জ্বরে আক্রান্তের হার ৫-১০০% কিন্তু মৃত্যুর হার ২%।

কারণ

Rhabdoviridae ভাইরাসের গোত্রভুক্ত Vesiculo ভাইরাস Bovine Ephemeral Fever (‘তিন দিনের জ্বর’) এ রোগের কারণ।

রোগ নির্ণয়

প্রধানত গ্রীষ্ম ও বর্ষার সময় আকস্মিক কাঁপুনি দিয়ে জ্বর ও তিন দিন স্থায়ী, পা খোঁড়ানো এ রোগ নির্ণয়ের অন্যতম বৈশিষ্ট্য।

লক্ষন

বোভাইন ইফিমেরাল ফিভার (Bovine Ephemeral Fever) রোগে তিন দিনে ৩ টি পর্যায়ের লক্ষন দেখা যায়।

১ম দিন
> হঠাৎ কাঁপুনি সহ তীব্র জ্বর (১০৩-১০৬) ডিঃগ্রীঃ ফাঃ পর্যন্ত হবে।
> ঘন ঘন নিঃশ্বাস নিবে ও জাবর কাটা বন্ধ করে দেয়।
> খাবার বন্ধ করে দিবে ও দুর্বলতা দেখা যাবে।
> কাঁপনি ও অসম্পুর্ন ঘন ঘন কাঁশি হবে।
> পায়ের গিরায় প্রচন্ড ব্যাথা অনুভুত হবে।

২য় দিন
> গরু খুড়িয়ে খুড়িয়ে হাটবে।
> নাক ও মুখ দিয়ে শ্লেমা ঝড়বে।
> পেট ফেঁপে যাবে।
> শংকর জাতের গরু শুয়ে থাকে উঠতে পারে না, দাড়ালেও খুব কষ্ট করে দাড়ায়।
> গাভীর দুধের উৎপাদন কমে যাবে।

৩য় দিন
> জ্বর কমে যাবে ও খেতে শুরু করবে।
> দুর্বলতা ও খুড়িয়ে হাটা ৩য় দিনও লক্ষ করা যাবে।

সম্ভাব্য ব্যবস্থা

ভাইরাস জনিত রোগ হওয়ায় এ রোগের সুনির্দিষ্ট কোন চিকিৎসা নেই।

তিন দিনের মধ্যেই আপনা আপনি এ জ্বর ভালো হয়ে যায়।

তবে আক্রান্ত গরুর ২য় পর্যায়ে জীবাণু সংক্রমণ থেকে রক্ষার জন্য অ্যান্টিবায়োটিক অক্সিটেট্টাসাইক্লিন জাতীয় ঔষধ প্রয়োগ করা যাবে।

® অক্সিটেট্রাসাইক্লিন গ্রুপের যেমন inj: Renamycin-L.A 100ml (Renata) 1cc/10kg b wt হিসাবে মাংশে শুধুমাত্র এক/দুই ডোজ দিলেই হবে। সাথে ® এন্টিহিস্টামিন inj: Antihista-vet 10ml (Square) 1cc/20kgw হিসাবে মাংশে দিয়ে দিতে হবে।

শরীরের তাপমাত্রা ও ব্যাথা নিয়ন্ত্রন করার জন্য
® প্যারাসিটামল গ্রুপের Tab: Fast vet (Acme) 1 tab/100 kg b wt. হিসাবে দিনে ২-৩ বার খাওয়াতে হবে পরপর তিন দিন।
অথবা
® Kitoprofen গ্রুপের যেমন inj: kitoflam (OPSONIN) 1cc/30kgw অনুযায়ী ২৪ ঘন্টা পরপর মাংশে ৩ দিন দিতে হবে।
পাশাপাশি মাথায় ঠান্ডা পানি ঢালতে হবে এবং ঠান্ডা ও আরামদায়ক স্থানে গরুকে রাখতে হবে।

খাওয়ার রুচি ও রুমেন সচল রাখার জন্য
® Stomachic & Rumen tonic জাতীয় ঔষধ যেমন Pow: Rumenal 10mg (FnF) মাঝারী ও বড় গরুতে দিনে ১+০+১ প্যাকেট পরপর ৩ দিন গুড় দিয়ে খাওয়াতে হবে।

প্রতিরোধ
চিকিৎসার চেয়ে প্রতিরোধ উত্তম। গবাদিপশুর সকল প্রকার রোগ-ব্যাধির প্রতিরোধ সম্পর্কে খামারীদের জ্ঞান অর্জন করা খুব প্রয়োজন।

© গ্রীষ্মকালে এ রোগের প্রাদুর্ভাব বেশি তাই এই সময় যতসম্ভব মশা মাছি কীট-পতঙ্গ নিয়ন্ত্রন করতে হবে।
© আক্রান্ত গরুকে দ্রুত অন্যত্র সরিয়ে রাখতে হবে।
© রক্ত শোষক বিভিন্ন কীট-পতঙ্গ মশা মাছি ডাঁশ আঁঠালী যাতে গরুর ঘড়ের আশেপাশে বাসা বাধতে না পারে এ জন্য মাঝে মাঝে জীবানুনাশক/ আঁঠালীনাশক সতর্কার সহিত প্রয়োগ করে এ রোগ প্রতিরোধ করা যায়।

এস এম রাসেল (সততা ডেইরী ফার্ম )

Please follow and like us:

About admin

Check Also

বাছুরের ডায়রিয়ার কারণ

Couses of diarrhea in neonatal rumenants 🔷Bacterial: 🔸Escherichia coli 🔸Salmonella spp. 🔸Campylobacter fecalis 🔸Campylobacter coli …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!