Breaking News

খামার_রেজিস্ট্রেশন_প্রক্রিয়াঃসরকারী প্রনোদনা পেতে খামারীকে রেজিস্টেশন করতে হবে।

#খামার_রেজিস্ট্রেশন_প্রক্রিয়াঃ
#উপজেলা_প্রাণিসম্পদ_অফিসে_খামার_রেজিস্ট্রেশনঃ
“খামার রেজিস্ট্রেশন” অনেকেই ঝামেলাপূর্ণ/ অযথা বিষয় মনে করে এই দিকে এগোতে চান না।বাস্তবে খামার রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়াটা কিন্তু সহজ। আপনারা লক্ষ্য করেছেন নিচ্ছই যে; সাধারণত কৃষি বা পশু সম্পদের সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তি / অফিসাররা বন্ধুসুলভ হয়। উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিস রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া আপনাকে সহযোগিতা করবেন। কাজেই যারা এখনও খামার রেজিস্ট্রেশন করেন নাই, তারা দ্রুত উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিস যোগাযোগ করে রেজিস্ট্রেশন করেফেলতে পারেন এখনি।
উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে খামার রেজিস্ট্রেশন করা যেমন নাগরিক হিসেবে দায়িত্ব, তেমনি সরকারি কোন সহযোগিতা পাওয়ার জন্য এটি আবশ্যকও বটে। আরেকটি বিষয়, রেজিস্ট্রেশন কিন্তু শুধুমাত্র বাণিজ্যিক খামারের ক্ষেত্রে প্রযেয্য, পারিবারিক খামারের জন্য নয়। কাজেই প্রথমেই জেনেনেই বাণিজ্যিক এবং পারিবারিক খামার এর সংজ্ঞা; “জাতীয় পোল্ট্রি উন্নয়ন নীতিমালা ২০০৮” অনুযায়ীঃ
#পারিবারিক_পোল্ট্রিঃ পারিবারিক পোল্ট্রি বলতে উম্মুক্ত (Scavenging) বা অর্ধ-উম্মুক্ত (Semi-scavenging) অবস্থায় পরিবারের সদস্যদের শ্রমের মাধ্যমে পালিত পোল্ট্রিকে বুঝায়, যা পরিবারের আয় ও খাদ্য নিরাপত্তা বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।
#বাণিজ্যিক_পোল্ট্রিঃ বাণিজ্যিক পোল্ট্রি বলতে ব্যবসার উদ্দেশ্যে সম্পূর্ণ আবদ্ধ অবস্থায় মেঝেতে (Floor) অথবা খাঁচায় (Cage) প্রতিপালিত অধিক উৎপাদনশীল (ডিম ও মাংস) বাণিজ্যিক প্রজাতির পোল্ট্রিকে বুঝায়। ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে ১০০ বা তদূর্ধ্ব সংখ্যক পোল্ট্রি পালন বাণিজ্যিক পোল্ট্রি হিসেবে গণ্য হবে।
কিন্তু রেজিস্ট্রেশন আপ্লিকেবল হবে ১০০০ বা তদূর্ধ্ব সংখ্যক পোল্ট্রি পালন করলে; এবং বাণিজ্যিক খামার স্থাপনেও দূরত্বের একটি মৌলিক শর্ত রয়েছে; যেমনঃ
(ক) বাণিজ্যিক খামার ঘনবসতি এলাকা এবং শহরের বাইরে স্থাপন করতে হবে;
(খ) একটি বাণিজ্যিক খামার থেকে আরেকটি খামারের দূরত্ব ন্যূনতম ২০০ মিটার হতে হবে;
#রেজিস্ট্রেশন_প্রক্রিয়াঃ
উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে খামার রেজিস্ট্রেশনের জন্য আপনি গেলে একটা ফর্ম (ছবিতে দেখুন) দিবে। ফর্মটা ফিলাপ করে আপনার খামারে মুরগির সংখ্যা অনুযায়ী নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকা রেজিস্ট্রেশন ফি হিসেবে সোনালী ব্যাংকে ট্রেজারী চালানের মাধ্যমে জমা দিয়ে চালান এর কপিটা পশুসম্পদ অফিসে জমা দিলেই আপনার কাজ কিন্তু শেষ!
#মুরগির_সংখ্যা_অনুযায়ী_রেজিস্ট্রেশন_ফিঃ
#মুরগির_খামার (ব্রয়লার)
এ-শ্রেণী(১০০০১ বা তদুর্ধ্বে ফিঃ১০,০০০_নবায়নঃ১,৫০০(প্রতি বছর)
বি-শ্রেণী(৫০০১থেকে ১০০০০) ফিঃ৫,০০০_নবায়নঃ৭০০(প্রতি বছর)
সি-শ্রেণী(১০০১ থেকে ৫০০০) ফিঃ২,৫০০_নবায়নঃ৪০০(প্রতি বছর)
#মুরগির_খামার (লেয়ার)
এ-শ্রেণী(২০০০১ বা তদুর্ধ্বে)ফিঃ১৫,০০০_নবায়নঃ২,৫০০(প্রতি বছর)
বি-শ্রেণী(১০০০১ থেকে ২০০০০)ফিঃ১০,০০০_নবায়নঃ১,৫০০(প্রতি বছর)
সি-শ্রেণী(১০০১ থেকে ১০০০০) ফিঃ৫,০০০_নবায়নঃ৭০০(প্রতি বছর)
#হাঁসের_খামার
এ-শ্রেণী(৫০০১ বা তদুর্ধ্বে)ফিঃ৫,০০০_নবায়নঃ৬০০(প্রতি বছর)
বি-শ্রেণী(৩০০১থেকে ৫০০০)ফিঃ৩,০০০_নবায়নঃ৪০০(প্রতি বছর)
সি-শ্রেণী(১০০১ থেকে ৩০০০)ফিঃ১,০০০_নবায়নঃ১৫০(প্রতি বছর)
উলেস্নখ্য যে, রেজিস্ট্রেশন বাবদ ফি/ রাজস্ব সরকারি কোষাগারে জমা দেয়ার কোড; হাঁস এবং মুরগি (পোল্ট্রি)ঃ ১-৪৪৪১-০০০০-২৩৩৫।
(আপডেট / সঠিক ফি এবং ব্যাংক কোড উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিস থেকে সরবরাহ করা হবে)
পুরনকৃত ফর্ম এবং টাকা জমাদানের চালান এর কপিটা প্রাণিসম্পদ অফিসে জমা হওয়ার পর উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিস থেকে আপনার আবেদনটি জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে পাঠানো হবে। জেলা প্রাণিসম্পদ থেকে পরিদর্শনের জন্য আবার উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিস এ পাঠানো হবে। উপজেলা থেকে আপনার ফার্ম পরিদর্শনের করে রিপোর্ট সহ পুনরায় জেলাতে যাবে; জেলাতে নিবন্ধিত হয়ে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে ফেরত আসলেই (এ প্রক্রিয়ায় ১/২ মাস সময় লেগে যেতে পারে, কিন্তু আপনাকে কিছুই করতে অবে না) আপনি আপনার রেজিস্ট্রেশন নাম্বারসহ কপি পেয়ে যাবেন।
মানে আপনার খামার রেজিস্টার্ড বা নিবন্ধিত

Please follow and like us:

About admin

Check Also

অর্থনীতির সঞ্জিবনী হতে পারে যুগোপযোগী প্রাণিসম্পদ খাত ডা. মো. নূরে-আলম

প্রেক্ষিত কোরবানি অর্থনীতির সঞ্জিবনী হতে পারে যুগোপযোগী প্রাণিসম্পদ খাত ডা. মো. নূরে-আলম গত কোরবানির ঈদের …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!