Breaking News

বিভিন্ন দেশে দুধ ,ডিম ও মাংসের দাম এবং মাথাপিছু আয়

১. কানাডা

কানাডার টরেন্টোতে এক কেজি গরুর মাংস বাংলাদেশী টাকায় ২৫৬ টাকা। এক লিটার দুধের দাম ৮৫ টাকা। কানাডার মানুষের মাথাপিছু আয় প্রায় ৪৫ হাজার ডলার।

২. আমেরিকা

নিউইয়র্কে এক কেজি গরুর মাংস ৫০০ টাকা। দুধের লিটার ৬৫ টাকা। ডিমের ডজন ১৬০ টাকা। এক লিটার সয়াবিন তেল ১০০ টাকা। আমেরিকানদের মাথাপিছু আয় প্রায় ৬০ হাজার ডলার।

৩. অষ্ট্রেলিয়া

সিডনিতে এক কেজি গরুর মাংস ৪৮৮ টাকা। এক লিটার দুধ ৬১ টাকা। ডিমের ডজন ২৪৪ টাকা। অস্ট্রেলিয়ানদের মাথাপিছু আয় প্রায় ৫৪ হাজার ডলার।

৪. সুইজারল্যাণ্ড

সুইজারল্যাণ্ডে এক কেজি গরুর মাংস ৬০০ টাকা। দুধের লিটার ৫০ থেকে ৬৫ টাকা। ডিমের ডজন ১৮০ টাকা। সুইজারল্যাণ্ডের মাথাপিছু আয় প্রায় ৮০ হাজার ডলার।

৫. জার্মানী

জার্মানীর বন শহরে এক লিটার দুধ ৬০ টাকা। এক ডজন ডিম ৬৫ থেকে ৭০ টাকা। রান্নার তেল ৯০ থেকে ৯৫ টাকা লিটার। জার্মানির মাথাপিছু আয় প্রায় ৪৭ হাজার ডলার।

৬. ইংল্যাণ্ড

লন্ডনে গরুর মাংসের কেজি ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা। এক ডজন ডিম ৯০ টাকা। রান্নার তেল ১০০ থেকে ১১০ টাকা লিটার। দুধের লিটার ৯০ টাকা।
ইংল্যাণ্ডের মানুষের মাথাপিছু আয় প্রায় ৪০ হাজার ডলার।

৭. ইতালী

ইতালীর ভেনিসে গরুর মাংসের কেজি ৫৫০ টাকা। এক লিটার দুধ ৫০ টাকা। ডিমের ডজন ১২০ টাকা। তেল ১০০ থেকে ১১০ টাকা লিটার। দেশটির মাথাপিছু আয় প্রায় ৩২ হাজার ডলার।

৮. জাপান

জাপানের টোকিওতে গরুর মাংসের কেজি ১ হাজার ২০০ টাকা। ডিমের ডজন ২০০ টাকা, দুধের লিটার ২০০ টাকা। মাথাপিছু আয় প্রায় ৪০ হাজার ডলার।

৯ কোরিয়া

সিউল শহরে গরুর মাংস ৭৫০ টাকা কেজি, দুধের লিটার ১১৫ টাকা, ডিমের ডজন ৯৫ টাকা, খাসির মাংস ৭১৫ টাকা কেজি। কোরিয়ার মানুষের মাথাপিছু আয় প্রায় ৩৩ হাজার টাকা।

১০. সিঙ্গাপুর

সিঙ্গাপুরে প্রায় সব জিনিসই আমদানি করা। এখানে ফ্রোজেন গরুর মাংসের কেজি ৫৫৮ টাকা। এক ডজন ডিম ১০৮ টাকা। সিঙ্গাপুরের মাথাপিছু আয় প্রায় ৫৮ হাজার ডলার।

১১. ভারত

কলকাতায় গরুর মাংসের কেজি ২১০ থেকে ২৪০ টাকা, খাসির মাংস ৭০০ থেকে ৭২০ টাকা। দুধের লিটার ৪৮ থেকে ৫০ টাকা। এক ডজন ডিম ৬০ টাকা। ভারতের মাথাপিছু আয় প্রায় ২২০০ ডলার।

১২. বাংলাদেশ

বাংলাদেশে এক কেজি গরুর মাংস প্রায় ৬০০ টাকা। এক কেজি প্যাকেট তরল দুধ ৭০ টাকা। ফ্রেশ দুধ ৮০ থেকে ১০০ টাকা লিটার। এক ডজন ডিম ১০০ থেকে ১১০ টাকা। এক লিটার সয়াবিন তেল ১০০ থেকে ১১০ টাকা। মাথাপিছু আয় প্রায় ১৮০০ ডলার।
.
মনে রাখি, কানাডার একজন শ্রমিক ঘণ্টায় আয় করেন ৭ হাজার ৬০০ টাকা, বাংলাদেশি শ্রমিকের ঘণ্টায় আয় ৩৩ টাকা, দিনে ২৬৭ টাকা।
.
ফলাফল

১.
বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার মতে, পর্যাপ্ত প্রোটিন ও ক্যালোরী না পাওয়ায় বাংলাদেশে অপরিণত শিশু জন্মহার সবচেয়ে বেশি।

২.
আয় এবং প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যে সমঞ্জস্য না থাকায় বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষের সুস্থ-স্বাভাবিক মেধার বিকাশ ঘটছে না।

এভাবেই বাংলাদেশ তার জনসম্পদকে ধ্বংস করে পৃথিবীর মধ্যে রোল মডেল হয়ে চলেছে!
[সূত্র: ডেইলী ষ্টার, বাংলা, কমেণ্টে লিংক]

কার্টেসীঃ রাখাল রাহা

Please follow and like us:

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!