Breaking News

ডায়াগ্নোসিসের ক্ষেত্রে কোন রোগে কোন অর্গানে কত% লেসন পাওয়া যায়

ডায়াগ্নোসিসের ক্ষেত্রে কোন রোগে কোন অর্গানে কত% লেসন পাওয়া যায়

আনুমানিক একটা হিসাব দেখানো হয়েছে তবে এই ধারণাটা খব গুরুত্বপূর্ন।

রানিক্ষেতঃ

শুধু ট্রাকিয়ায় লেসন পাওয়া যায় যা দেখে রানিক্ষেত ডায়াগ্নোসিস করতে হয় প্রায় ২০% রানিক্ষেতের ক্ষেত্রে।প্রভেন্টিকোলাস দেখে ৪৫% রানিক্ষেত।ট্রাকিয়া এবং প্রভেন্টিকোলাস মিলিতভাবে ২০%,অন্ত্রে আলসার দেখে১০% রানিক্ষেত,প্যারালাইসিস দেখে ৫%রানিক্ষেত।কাজেই সব অর্গানে এক সাথে পাব তা ভাবা যাবে না।

গাম্বোরুঃ

বার্সায় রক্ত দেখে ৩০% গাম্বোরু ডায়াগ্নোসিস করতে হতে পারে,মাংসে রক্ত দেখে ৩০%,বার্সা ও মাংসে রক্ত দেখে ৩৫%।বাকি ৫% সাবক্লিনিকেল/ভেরিয়েন্ট গাম্বোরু।

আই বিঃহাচি,কাশি দেখে ৫৯% আই বি বুঝতে হবে,প্রডাকশন দেখে ৪০%,কিডনি ও ঠান্ডা লাগা দেখে ১%।

এইচ ৯ এন ২ঃখাবার ও ডিম কমে যায়,ঠান্ডা লাগে এসব দেখে ৯৫% এইচ ৯ এন ২ ডায়াগ্নোসিস করতে হয়।পি এম করলে এবডোমিনাল ফ্যাট দেখে ৮০%,ওভারী,চোখের কংজাংটিভাইটিস ওট্রাকিয়া দেখে ২০% ডায়াগ্নোসিস করা লাগতে পারে।

এইচ ৫ এন ১ঃখাবার ঠিক,ডিম ঠিক কিন্তু মারা যায় ব্যাপক হারে ১০% এর বেশি করে এটাই এইচ ৫ ৯৫% এভাবেই বুঝা যায়।,এক্টা নির্দিস্ট জায়গায় শুরু হয়,ঝুটি বেগুনী বা নীল কালার এসব দেখে ৬০%ডায়াগ্নোসিস করা লাগে,পি এম করলে মাংসে রক্ত ২০% কেসে,লিভার,কিডনি ড্যামেজ,হার্টে রক্ত এসব দেখে ২০%

কলেরাঃহার্টে রক্ত দেখে ৫০% ডায়াগ্নোসিস করতে হয়,এবডোমিনাল ফ্যাট,লিভার ও হার্ট দেখে ৫০%

টাইফয়েডঃওভারী,কিডনি,ফুস্ফুস দেখে ৮০%,মর্টালিটির ধরণ ও লিভার দেখে ২০% নির্ণয় করতে হয়।

করাইজাঃখাবার ও ডিম কমে যায়,চোখে ফোলে যায় ৯৯% করাইজাতে ,চোখের ভিতর ক্যাজিয়াস ম্যাস পাওয়া যায় ১% কেসে।

মারেক্সঃশুকিয়ে যায় এটা দেখে ৩০% বুঝতে হবে,প্যারালাইসিস হয় এটা দেখে ২০% বুঝা যাবে,একিউট মারা যাবে এমন মারেক্স ৫%,অর্গানে টিউমার দেখে৪৫% কেসে। লিভারে ৬০%,কিডনিতে ৪০%,স্প্লিনে ১০%,চোখে ৫%,হার্টে টিউমার ৫%,সায়াটিক নার্ভ মোটা হয়ে যায় এটা পাওয়া যায় না।চোখে ও কম পাওয়া যায়(আইরিশ এর কালার ও সাইজ পরিবর্তন হয়ে যায়।ওভারীতে টিউমার ৫%,প্রভেন্টিকোলাসে টিউমার ৫% কেসে।

ইকলাইঃলিভার ও হার্টে পর্দা দেখে ৯০%,এগ বাউন্ড,পেরিটোনাইটিস,আর্থাইটিস,এন্টারাইটিস দেখে বাকি ১০% বুঝা লাগবে।

পক্সঃড্রাই পক্স ৯৫%,ওয়েট পক্স ৫%।

ফ্যাটি লিভারঃলিভার দেখে ৯০%,ফ্যাট দেখে ৫%,কিডনি দেখে ৫%।

নেক্রোটিক এন্টারাইটিসঃঅন্ত্রনালিতে নেক্রোটিক আলসার ১০%,এন্টারাইটিস ২০%,লিভার কালো ৫%,সবাক্লিনিকেল ৬৫%।

আমাশয়ঃসিকামে রক্ত ৪০% কেসে,অন্ত্রে হাল্কা পিন পয়েন্ট রক্ত(ম্যাক্সিমা,এসাভুলিনা) ৩০% কেসে,নেকাটিক্স ৪%,ব্রুনেট্রি ১%,সাবক্লিনিকেল২৫% কেসে।খাবার কম খাওয়া,ছিটানো,ফিসিস দেখে ৫০% ধারণা করা যায় বা কক্সির কেস পাওয়া যায়।

আই এল টি তেমন পাওয়া পাওয়া না।

ব্রুডার নিউমোনিয়াঃফুসফুস ও এয়ারস্যাকে নডিউল ৯৯%কেসে,প্যারালিসস১%।

Please follow and like us:

About admin

Check Also

বাচ্চা মুরগিতে ১ম সপ্তাহে কেন রোগ কম হয়,২সপ্তাহের দিকে কেন বেশি হয়।

বাচ্চাতে ম্যাটার্নাল এম ডি এ নয়ে আসে যা প্রটেকশন দেয়।আবার ২ সপ্তাহে বা পরের দিকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »
error: Content is protected !!