Breaking News

টিপসঃ ১৫

 টিপসঃ ১৫

#ইমালসিফায়ার কি

ভেজিটেবল অয়েল থেকে হাইড্রোলাইজড হয়ে লেসিথিন হয় যাতে ফস্ফোলিপিড থাকে এবং এর এক প্রান্ত হাইড্রোফোবিক অপর প্রান্ত  হাইড্রোফিলিক হিসেবে কাজ করে।

অয়েল পোলার আর পানি নন পোলার

খাবারে তেল দিলে ২% বাইল ইমালসিফায়ার হিসেবে কাজ করে।

২% তেলের জন্য ২৫০গ্রাম আর ৪% তেলের জন্য ৫০০গ্রাম ইমালসিফায়ার/টন দেয়া উচিত।

Natural egg is good emulsifire.

##এসেন্সিয়াল এসিড এবং ওমেগা ৩,৬,৭,৯

ওমেগা ৩ ও ৬ বেশি গুরুত্বপূর্ণ ।ওমেগা ৬ কনভার্ট হয়ে অন্য এসিডে রুপান্তরিত হয়।

উৎস ঃ এলগি,তিল(লিনসিড),ভুট্রা,সয়াবিন তেল,অলিভ অয়েল,কর্ণ ওয়েল(Corn oil),রাইস ব্রান অয়েলে ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড বেশি থাকে।

সয়াবিন,সান ফ্লাওয়ার,কর্ন অয়েলে ওমেগা ৬ থাকে।

রাইস ব্রান অয়েল,ফ্ল্যাক্স সিড  আন্স্যাসুরেটেড ফ্যাটি এসিড ও লিনোলেয়িক এসিড সমৃদ্ধ।

লিনোলেনিক এসিড,স্যাসুরেটেড ফ্যাটি এসিড

ট্যালোঃপাল্মিটিক ও স্টিয়ারিক এসিড।

কেন প্রয়োজনঃ ব্রেইন ডেভেল্ মেন্ট,এনার্জি রিলিজ করে।রিপ্রডাকশন ও হরমোন তৈরিতে কাজে লাগে।

গ্রোয়িং পিরিয়ডে আন্স্যাসুরেটেড ফ্যাটি এসিড বেশি দরকার কারণ এতে গ্রোথ ভাল হয়।

##পানির পি এইচ যদি ৭এর উপর হয় তাহলে প্রোটিন ডাইজেস্টিবিলিটি কমে যায়।

নেফ্রোসিস বা কিডনি ফোলার কারণ

 জেন্টামাইসিন,নিওমাইসিস ও এমিকাসিনের অভার ডোজ
আই বি এইচ,আই বি ডি,আই বি ও গাউট
খাবারে অক্রাটক্সিন বা ইউরিয়া
ফিসমিলে বা এম বি এমে ডাইওক্সিন থাকলে
খাবারে কেমিকেলের মত ইন্সেক্টিসাইড থাকলে
পানি কম থেলে বা মেটাব্লিজমে সমস্যা হলে
ভাইরাল নেফ্রাইটিস
পানি বন্ধ থাকলে
খাবারের মিক্সিং যদি ভাল না হয় তাহলে কোন কোন বস্তায় বেশি প্রোটিন থাকলে
মাইকোপ্লাজমা থেকে কিভাবে ফার্মকে মুক্ত রাখতে পারি
সম্বব হলে ঠান্ডা লাগা শ্রমিককে ফার্ম থেকে দূরে রাখা
বেশির ভাগ জীবাণুনাশক সেলওয়ালের উপর কাজ করে কিন্তু মাইকোপ্লাজমার সেল ওয়াল নাই তাই জীবাণুনাশক কাজ করে না।
১টন খাবারে ১লিটার ফরমালিন দিলে এটি  মাইকোপ্আলাজমার আর এন এর উপর কাজ করবে।
পানিতে মেঞ্জাকোনিয়াম ক্লোরাইড ১লিটারে ৫ এম এল দিয়ে স্প্রে করতে হবে।
খাবারে বা পানিতে ইরাইথ্রোমাইসিন,এজিথ্রোমাইসিন,টিয়ামোলিন বা টিলমিকোসিন দেয়া যায়।
এম বি এম পোল্ট্রিতে ৬% এর বেশি দেয়া ঠিক নয় কেন?
এমাইনো আসিড,ক্যালসিয়াম ও ফসফরাসের ব্যালেন্স নস্ট করে দেয়।
পালক পড়ে যায়।
 গরমে এম বি এম ১৫দিনের বেশি স্টোর  করলে মান নষ্ট হয়ে যায়।
ভাল ও খারাপ এম বি এম সহজে বুঝা যায় না।
অনেক সময় চামড়া ও পশুর খুর,এম বি এমের সাথে মিশিয়ে দেয় ফলে ডাইজেস্টিবিলিটি কমে যায়।
ব্লাডমিল ও লেদারমিল এম বি এমের সাথে মিশিয়ে থাকে।
এম বি এমের কালার হবে গ্লোকোজ বিস্কুটের মত।
 এম বি এম দেখতে যদি লাড্রোর মত হয় তাহলে বুঝা যায় এতে ১০ % এর বেশি ফ্যাট মিশানো হয়েছে এবং তা ১৫দিনের বেশি স্টোর করা যাবেনা।
৬-৭% ফ্যাট থাকা ভাল।

পার্ল মিলেট বা বাজরার সাথে ভুট্রার তুলনা

ভুট্রা

এনার্জি ৩৩০০ কিলো,এর প্রোটিন কে জিন বলা হয় যার বায়োলজিকেল ভ্যালু কম।এতে কম লাইসিন ও ট্রিপটোফ্যান থাকে।

ফ্রেশ ক্রপে ৩৭% ময়েসশার থাকে।এক মাত্র শীতকালীন ভুট্রা বেশি নিরাপদ যাতে কম টক্সিন থাকে।

ব্রয়লার ভুট্রা ছাড়া পালা সম্বব না।

এতে প্রোটিন ৮.৮-৯.২%

বাজরা।

 ক্যালোরি ৩০০০ ও প্রোটিন ৯.৬-১০%।এর প্রোটিনের ডাইজেস্টিবিলিটি ভুট্রার তুলনায় কম কিন্তু এমানো এসিড এর এব্জশন ভাল হয়।
এটি ডায়াব্যাটিক,ক্লোলেস্টেরল,বেস্টক্যান্সার ও গল ব্লাডারের পাথর থেকে রক্ষা করে।
ভারতে সবচেয়ে বেশি বাজরা উতপাদন হয়।
আরগট টক্সিন ছাড়া কোন টক্সিন নাই।কিন্তু এটি গরম কালে গাটে ডিস্টারব্যান্স করে।
এতে প্রচুর আইরন ও ম্যাঙ্গানিজ থাকে।
ইনক্লোশন লেবেল লেয়ারে ৬৫% আর ব্রয়লারে ৩০%।
রাজস্থানে বেশি বাজরা হয়
 ব্রোকেন  রাইস

এতে বেশি ডাইজেস্টেবল প্রোটিন থাকে কিন্তু এটি লিপোজেনিক মানে এটি প্রাণি ও মানুষে ওভিসিটি(Obesity) করে

ব্রোকেন রাইসে এনার্জি ২২০০ কিলো আর ডর্বে  (DORB) ১৫০০-১৮০০ কিলো।

(DORB)ডর্বে ফাংগাস গ্রো করে।

কক্সিডিওসিস কন্টোলের জন্য

প্রিশটার ফিডে ক্লোপিডল(Clopidol)

স্টাটা্রে রবেনিডিন(Robendine)

ফিনিশার মনেনসিন বা মাদুরামাইসিন

 টাইলোসিন ও টিল্মাইসিন আয়োনোফোর এর সাথে ইন্টারএকশন আছে।

লেমনেস বা চিকেন এনিমিয়া থাকা অবস্থায় এই ২টি প্রোডাক্ট ব্যবহার করলে মর্টালিটি বেশি হবে কারণ ২টি প্রোডাক্টই বোনম্যারো সাপ্রেস করে।

salinomycin বেশি ব্যবহর হয় কারন সস্তা কিন্তু এটি খুব টক্সিক।
মাদুরামাইসিন লেয়ারে ব্যবহর করা ঠিক না কারণ ওভারীর ক্ষতি করে।

tylosin has no contradictions with monensin,narsin্‌maduramycin, salinomycin and lasollacid

florphenical it can be used with monensin but sometimes reactions are observed
sulfaquinoxalin -it is incompatible with monensin,narsin 
sulfachlorpyrazine -incompatible with monensin,narsin,maduramycein
sulfadimethazine incompatible with monensin and narsin ,zinc bacitacin and ionophores

zinc bacitracin are incompatible with monensin,lasolacid,maduramycin 


Drug toxicities in shape of lameness and ataxia -most of monovalent ionophores like narsin ,salinomycin and monesin causes cal phos phoros disturbance in metabolism while divalent ionophore like lasolacid causes metabolism disturbance in potassium metabolism the net result is ataxia.


Salinomycin toxicity-
it is observed when given with tiamulin
improper mixing
over dosage
symptoms –

interestingly all symtoms match metabolic disorders like myocardial enlargement,hydropericardium ascitis ,liver degeneration  and enlarged kidneys
Conclusions cocci is not only affects poultry it affect cattle,rabbit etc

most of monovalent coccidiostats are unsafe with sulfa group. it is also emphasized there usage is maximum in industry with large efficacy but disadvantage is narrow margin of safety

  ##লাইম স্টোন পাউডার ও মার্বেল চিপে ম্যাগ্নেসিয়াম বেশি থাকে।

মার্বেল চিপস বেশি দিলে বেশি খায় কারণ এতে ক্যালসিয়াম কম এবং কোয়ালিটি খারাপ কিন্তু  কৃমি বেশি,ম্যাগ্নেসিয়াম বেশি থাকার কারণে পেস্টি ভ্যান্ট হয় ফলে পিকিং ডায়রিয়া বেড়ে যায়।

তাই ভাল মানের ক্যালসিয়াম ব্যবহার করা উচিত।

উইং রট ও কক্সিডিওসিস বেশি হয়।

 #
ব্রয়লারে লাইট যদি সব সময় দেয়া হয় তাহলে খাবার বেশি খাবে কিন্তু ফিড প্যাসেজ টাইম কমে যাবে।এতে খাবার এনজাইমের সাথে কন্টাক টাইম খুব কমে যাবে ফলে খাবার ফিসিস আকারে বের হয়ে যাবে।পুস্টি উপাদানের ঘাটতি হবে।
## অসুস্থ মুরগির ওজন কমে যাবার কারণ শরীরের চাহিদা পূরণ করার জন্য মাসল থেকে প্রোটিন খরচ হয়ে যায় ।
##হ্যাচারীর সেটিং এ তাপমাত্রা যদি ৪০ ডিগ্রির বেশি হয় তাহলে টো (Toe) ( beak)ঠোঁট (Crooked) বাকা হয়ে যায়
তাপমাত্রা যদি ৩৭ ডিগ্রির কম হয় তাহলে ঘাড় বাকা হয়ে যায়(Twisted Neck) হয়।
আপেক্ষিক আর্দ্রতা  স্ট্যান্ডার্ড ৬৫-৮৫% /
যদি ৫০% এর কম হয় তাহলে বাচ্চা ছোট হয় এবং খোসার সাথে লেগে যায়
যদি আর্দ্রতা বেশি হয় তাহলে মার্সি চিক হয়।
৪ ও ১২ তম দিনে এগ টেস্টিং করতে হয় এম্ব্রায়োর গ্রোথ ও বৃদ্ধি দেখার জন্য,ডিমের মাঝ খানে যদি ডার্ক থাকে তাহলে বুঝতে হবে এম্ব্রায়ো মারা গেছে
এগ টার্নি ং করতে হয় দিনে মিনিমাম ৪বার ,ইউনিফর্ম লি তাপদেয়ার জন্য।
প্রতিবার হ্যাচিং এর পর ১% ফর্মালিন দিয়ে ফিউমিগেট করতে হবে।
 উপাদান                          ক্যালসিয়াম%        ফসফরাস%
ডি সি পি                           ২৬.৫              ২০.৫
বোন মিল                         ২৯                  ১৩.৬
চুনাপাথর(ক্যাল কার্বোনেট  ৩৩.৮              ০
ক্যালসিয়াম ফস্ফেট          ১৭                    ২১
ঝিনুকের গুড়া                 ৩৫                    ০
Please follow and like us:

About admin

Check Also

টিপস ৩২

ডিমের কোয়ালিটির সাথে জড়িত বিষয় ক্রোমিয়াম ও কপার(Pluming process in uterus) এস কর্বিক এসিড ক্টন …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!