Breaking News
কর্ক শিট বিয়ে ইনকিবেটর বানানো
কর্ক শিট বিয়ে ইনকিবেটর বানানো

খুব কম খরচে কর্কশীটের বাক্স দিয়ে ইনকিউবেটর তৈরির পদ্ধতি

 খুব কম খরচে কর্কশীটের বাক্স দিয়ে ইনকিউবেটর তৈরির পদ্ধতি

প্রোল্ট্রি শিল্পে ইনকিউবেটর একটি অতি প্রয়োজনীয় মেশিন, প্রোল্ট্রি শিল্পের সাথে জড়িত প্রায় সকল খামারিই ইনকিউবেটরের প্রয়োজনীয়তার গুরুত্ব অনুভব করতে পারেন।
অনেক খামারি ভাই ইনকিউবেটর ক্রয় করে নিজের খামারে বাচ্চা উৎপাদন করে থাকেন।
কিন্তু অনেক ছোট খামারি ভাইদের ইনকিউবেটর কেনার সামর্থ থাকেনা, কারন বড় ইনকিউবেটরের তুলনায় ছোট ইনকিউবেটর গুলোর মূল্য বেশি হবার কারনে ছোট খামারি ভাইদের ইনকিউবেটর কেনার আশা আর পূরণ হয়না।
ইনকিউবেটর ক্রয় করতে না পারা ছোট খামারি ভাইদের অন্তরে ছোট্ট একটি স্বপ্ন থাকে নিজের যদি একটি ইনকিউবেটর থাকতো, বা কম খরচে নিজে যদি একটি ইনকিউবেটর বানাতে পারতাম তাহলে নিজের খামারের বাচ্চা নিজেই উৎপাদন করা সম্ভব হতো।
সেই সকল ছোট খামারি ভাইদের ইনকিউবেটর তৈরির স্বপ্ন পূরণের সহজ উপায় নিয়েই আজকে এই লেখা…।

ইনকিউবেটর ডিম থেকে বাচ্চা ফুটানোর একটি মেশিন,
আসলে কি ঘটে এই মেশিনের ভিতর যার ফলে ডিম থেকে বাচ্চা ফুটে বের হয়.!
ডিম থেকে বাচ্চা ফুটার মূল নিয়ম সব ক্ষেত্রে একই রকম,
তাই ডিম থেকে যেভাবেই বাচ্চা ফুটানো হোকনা কেনো একটা নির্দিষ্ট সময়েই ডিম ফুটে বাচ্চা বের হয়, সময়ের কোন পরিবর্তন হয়না,
তাহলে বুঝা গেলো মুরগী তাপ দিয়ে ডিম ফুটাতে যে কয়দিন সময় লাগে, ইনকিউবেটরে ডিম ফুটাতে সেই একই সময় লাগে, কারন মুরগীর কাজটাই কৃত্যিমভাবে সম্পূর্ণ করা হয় ইনকিউবেটরে।

ইনকিউবেটরে ডিম ফুটানোর প্রধান কাজ

সঠিক তাপমত্রা বজায় রাখার মাধ্যমে ভ্রুনের সঠিক কোষবিভাজোন নিশ্চিৎ করা ।
তাপকে সঠিক মাত্রায় বজায় রাখার জন্য প্রথমে এমন একটি কক্ষ বাছাই করতে হবে যেখানে তাপমাত্রা আটকে থাকতে পারবে, এই জন্য তাপ রোধক পদার্থ দিয়ে ইনকিউবেটরের বডি তৈরি করা হয়।
কর্কশীট সবচেয়ে কার্যকারী ভাবে দীর্ঘসময় তাপমাত্রা আটকে রাখতে পারে।

ইনকিউবেটর ছোট করে তৈরির ক্ষেত্রে কর্কশীটের রেডিমেট বক্স সবচেয়ে কার্যকারী  উপায়।

*প্রথম উপকরন কর্কশীটের বক্স।
ইনকিউবেটরে তাপ তৈরির জন্য বাল্ব ব্যবহার করা হয়, কর্কশীটের বক্সের জন্য ২৫-৪০ওয়ার্ট বাল্বই যথেষ্ট।
*দ্বিতীয় উপকরণ বাল্ব।
তাপমাত্রা সর্বদা সঠিক ভাবে নিয়ন্ত্রনে রাখার জন্য প্রয়োজন তাপ নিয়ন্ত্রক বা অটোমেটিক ট্যম্পারেচার কন্ট্রোলার।
*তৃতীয় উপকরণ ট্যম্পারেচার কন্ট্রোলার।
ডিম হেচিংএর সময় ডিমের ভিতর বাচ্চার শরিরে তাপ তৈরি হয় যার ফলে হিটার বন্ধ থাকলেও তাপমাত্রা বাড়তে থাকে,সেই অতিরিক্ত তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রনে রাখতেই হবে,
সেই তাপ নিয়ন্ত্রনের বাহিরে গেলে ডিমের ভিতর বাচ্চা মারা যাবে, তাই কন্ট্রোলারে অবশ্যই ওভার ট্যম্পারেচার কন্ট্রোল ব্যবস্থা থাকতে হবে।
*চতুর্থ উপকরন তাপ ছড়ানো এবং অতিরিক্ত তাপ বের করার জন্য কুলিং ফ্যন।
ইনকিউবেটরে  আর্দ্রতা নিয়ন্ত্রন ব্যবস্থা রাখাটাও বেশ জরুরী, আর্দ্রতা নিয়ন্ত্রনে না থাকলে ডিম থেকে বাচ্চা ফুটতে পারেনা, বা ডিমের ভিতর বাচ্চা আটকে যায়,
তাই ইনকিউবেটরে  আর্দ্রতা সঠিক রাখার জন্য  আর্দ্রতা মাপক মিটার বা(HTC) এর মধ্যমে  আর্দ্রতা দেখে মেনুয়েলি আদ্রতা সঠিক রাখা সহজ হবে।
*ষষ্ঠ উপকরণ HTC বা আর্দ্রতা মাপক ডিভাইস।
কন্ট্রোলার টি ১২ভোল্ট চালু রাখার জন্য ১২ভোল্ট ট্রান্সফরমার ব্যবহার করতে হবে।

ইনকিউবেটর তৈরির নিয়মঃ

প্রথম কর্কশীটের বাক্সে একটি প্লাস্টিকের বোর্ড লাগিয়ে নিন।
বোর্ডের সাথে বাল্ব হোল্ডার লাগিয়ে নিন, বাল্বের ঠিক নিচে একটা কুলিং ফ্যান লাগান।
এই কুলিং ফ্যানটি বাল্বে বাতাস প্রবাহিত করবে, যার ফলে বাল্বের কাছে থাকা তপমাত্রা সব জায়গায় সমান ভাবে সব খানে ছড়িয় পড়বে।
যেহেতু বাল্বের নিচে থাকা  ফ্যান্ টির  কাজ তাপ ছড়ানো তাই ঐ ফ্যনের সংযোগটা বাল্বের গোড়া থেকে ১২ভোল্ট ট্রান্সফরমার এর মধ্য দিয়ে  ফ্যান ১২ভোল্ট দিতে হবে। এতে যখন বাল্ব জ্বলবে তখন ফ্যানও বাল্বের তাপ ছড়ানোর জন্য চলবে, বাল্ব বন্ধ হলে ফ্যান ও বন্ধ হবে।
এবার ইনকিউবেটরের একপাশে একটা ফুটো করে অন্য একট কুলিং  ফ্যান সেখানে লাগান, এই ফ্যানের কাজ অতিরিক্ত তাপমাত্রা বাহিরে বের করে দেয়া,
htc যেখানে রাখবেন সেখানে একটা ফুটো করবেন যাতে বাহির থেকে ভিতরের আর্দ্রতা HTC তে দেখা যায়।

এবার কন্ট্রোলারের সাথে বাল্বের তাপ ছড়ানো ফ্যনের এবং অতিরিক্ত তাপ বের করার ফ্যনের সথে কন্ট্রোলার কে লাগিয়ে নিন, ৪নং ছবিতে কানেকশন ডায়াগ্রাম দেখে সংযোগ লাগিয়ে নিন, অবশ্যই মনে রাখবেন বাল্বের গোড়া থেকে ১২ভোল্ট ট্রন্সফরমার বা এ্যডেপ্টার দিয়ে ফ্যনে ১২ভোল্ট সংযোগ দিবেন, এবং কন্ট্রোলারেও ট্রন্সফরমার দিয়ে ২২০ভোল্ট থেকে ১২ভোল্ট করে কন্ট্রোলার চালাবেন, কন্ট্রোলারটি একটি প্লাস্টিকের বক্সের ভিতরে তুলবেন, এবং কন্ট্রোলারের পাওয়ার রিলে বোর্ড একটু দুরে রাখুন প্রয়োজনে কন্ট্রোলারের AC-220V সংযোগ স্থল গুলোতে ভালভাবে টেপ দিয়ে পেঁচিয়ে নিবেন।

সকল কিছু সঠিক স্থানে স্থাপন করা হলে, এবং সঠিক ভাবে সংযোগ দিলে হয়ে যাবে একটি ইনকিউবেটর।
ইনকিউবেটর টি তৈরি শেষে, তাপমাত্রা ৩৭.৭ডিঃ সেঃ এ সেট করে তাতে ডিম বসিয়ে দিতে পারবেন, ২থেকে ৪ঘন্টা পর পর ডিম গুলো হাত দিয়ে নিড়িয়ে দেবেন,যেহেতু ওখানে বাল্ব থাকবে তাই বাল্বের সামনে একটা নেট দেবেন যাতে ডিম ঘুরানোর সময় হাত বাল্বের সাথে না লাগে।

এর পরে  আর্দ্রতা বেড়ে গেলে শুকনো চুন, শুকনো ছাই, বা বরফ দিয়ে  আর্দ্রতা কমাবেন, এবং আর্দ্রতাকমে গেলে ভিজা কাপড় ইনকিউবেটরের ভিতর রেখে   আর্দ্রতা বাড়াবেন, সেটারে আদ্রতা আর্দ্রতা৫৫%এর কাছাকাছি রাখুন, এবং হেচারে  আর্দ্রতা ৮০%এর কাছাকাছি রাখুন।

এভাবে যত্ন নিলে নিদৃষ্ট সময়ে ডিম থেকে বাচ্চ ফুটে বের হবে, ইনকিউবেটর তৈরির যে কোনো পরামর্শ এবং ইনকিউবেটর তৈরি যন্ত্রঅংশের জন্য, আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

 

 লেখকঃ আব্দুল ওহাব(০১৭৪৬-৬০৯২২০)
Please follow and like us:

About admin

Check Also

বিদ্যুৎ চালিত ইন কুবেটর

বিদ্যুৎ চালিত ইনকিউবেটর বানানোর নিয়ম

প্রথমে আমরা ইনকিউবেটরের বক্স বানাবো, এর আগে আমরা বক্সের কার্যকারিতা সমদ্ধে  জানবো। ইনকিউবেটরের বক্স মুলত …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!