Breaking News

খাদ্য হজমে এঞ্জাইমের ভূমিকা

★★পোল্ট্রিতে খাদ্য শোষনে এনজাইমের ভুমিকা★★
মডার্ন পোল্ট্রি ফিড নিউট্রিশন/টেকনোলজি বলতে ফিডে ব্যবহৃত উপাদান হতে সঠিক পরিমানে নিউট্রিশন এবং সঠিক হজম প্রকৃয়ায় এনজাইমের ভুমিকা ব্যাপক। এনজাইম মুলত মনোগ্যাসট্রিক প্রানীর এন্ডোজেনাস সাপ্লিমেন্টেশন এবং এক্সোজেনাস মুলত বাইরে হতে ফিডে বা পানিতে সাপ্লিমেন্ট।পোল্ট্রি ফিড নিউট্রশন মতে ভুট্টাতে স্টার্চ ৭২-৭৫%, প্রোটিন ৮.৫-৯%, ক্রুড ফ্যাট ২.৫-৩.৮%, ক্রুড ফাইবার ২.৮%, লাইসিন ০.২% ও মিথিওনিন ০.২%। এরকম ফিড তৈরিতে অনেকগুলো উপাদান থাকে- প্রত্যেক উপাদানের নিউট্রিশন আলাদা যেমন ফিস মিলে প্রোটিন থাকে ৫৫-৬০%। মুলত ফিড গ্রেডে আমাদের প্রধানত হজমের জন্য চিন্তা থাকে স্টার্চ, প্রোটিন, ক্রুড ফাইবার, সেলুলোজ, ক্রুড ফ্যাট ইত্যাদি।এখানে ভুট্টা দিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করবো কারন ফিড গ্রেডে ৫৫-৬০% লাগেই ভুট্টা।পোল্ট্রি ফিড নিউট্রশন মতে ভুট্টাতে ৭২-৭৫% স্টার্চ থাকে। যখন পোল্ট্রি ভুট্টা ফিডিং করে তখন ভুট্টার ৬০% স্টার্চ সহজে হজম হয় তার সাধারন ফিজিওলজির বা এন্ডোজেনাস এনজাইম দ্বারা বাকি থাকে ১৫%। খেলা কিন্তুু হয় এই ১৫% স্টার্চ কিভাবে ১০০% শোষন করানো যায়। ★★★দেখে নিতে পারি এই বাকি ১৫% স্টার্চ শোষন না হওয়ার কারণঃ১. আর-১ঃ ভুট্টা কোন কারনবশত না ভাঙলে যেমন -সংরক্ষন, ড্রাইং এবং ফিড প্রোসেসিং।২. আর-২ঃ এমাইলেজ এর পরিমান এমাইলোপেকটিন এর চেয় কম হলে।এমাইলেজ- সহজে হজমযোগ্যএমাইলোপেকটিন- সহজে হজম হয় না।৩. আর-৩ঃ প্রোটিন ফিজিকাল কোটিং এবং ভুট্টা আনডাইজেটেবল কমপ্লেক্স এ থাকলে।
এখন প্রশ্ন এই ১৫% স্টার্চ পোল্ট্রিতে কিভাবে ১০০% কাজে লাগানো যায়। তার সঠিক সমাধান এনজাইম….১। জাইলানেজ- ফাইবার (এরাবিনোজাইলাস)২। প্রোটিয়েজ- প্রোটিন হজম করতে সহায়তা করে।৩। এমাইলেজ- স্টার্চ।৪। সেলুলেজ- সেলুলোজ৫। লাইপেজ- অয়েল৬। ফাইটেজ- ফসফরাস নিঃসরনের মাধ্যমে অতিরিক্ত প্রোটিন ও এনার্জি সরবরাহ নিশ্চিত করে।-উপরের সকল এনজাইম পোল্ট্রির শরীরে তৈরি হয় কিন্তুু ফাইটেজ পোল্ট্রিতে উৎপন্ন করতে পারেনা। এখন চলে যায় ফাইটেজ এনজাইম কেন প্রয়োজনীয়ঃফাইটেজ এনজাইম মুলত ফসফরাস নিঃসরনে সহায়তা করে আর এই ফসফরাস যখন-ভুট্টায় থাকে তখন ফাইটিক এসিড হিসেবে।- পোল্ট্রির অন্ত্রে থাকে ফাইটেট ফর্মে।
তখন এই ফাইটেটকে ভাঙার জন্য আমাদের বাইরে থেকে ফাইটেজ এনজাইম পোল্ট্রির ফিডে যোগান দিতে হয়। যদি ফাইটেজ এনজাইম না দিতে পারি তবে এই অশোষিত ফাইটেট কার্বোহাইড্রেট বা স্টার্চ, এমাইনোএসিড, প্রোটিনকে বেধে ফেলে অর্থাৎ আনডাইজেটেবল কমপ্লেক্স ফর্মে থেকে নিউট্রিশনের ঘাটতিসহ পোল্ট্রির শরীরে ফসফরাস নিঃসরন হতে পারেনা।-উদাহরণ সরূপ ১ কেজি ভুট্টাতে ২.৮ গ্রাম ফাইটেট থাকে যেখানে মাত্র পোল্ট্রি ০.৮ গ্রাম নিতে পারে আর বাকি ২ গ্রাম ফাইটেট প্রোটিন, স্টার্চ, এমাইনোএসিড এসিডের সাথে বাইন্ড করে পায়খানার সাথে বেরিয়ে আসে।ফাইটেজ এনজাইম বাইরে থেকে যদি পোল্ট্রি ফিডে যোগ করি তাহলে আবার এই আনডাইজেটেবল কমপ্লেক্স থেকে প্রায় অতিরিক্ত ১০০-১৫০ কিলোক্যালরি এনার্জি, ০.৫-০.৭৫%/১০০ কেজি প্রোটিন, ০.১৪৫% ফসফরাস ইত্যাদি পাওয়া যায়।
★★★নোটঃ১। এনজাইম নিজেই প্রোটিনধর্মী সুতরাং লিকুইড আকারে যখন কোন এনজাইম থাকে তখন তারা নিজেদের ভিতর বিক্রিয়া করে বিশেষ করে প্রোটিয়েজ ভাঙতে থাকে। এজন্য লিকুইড এনজাইম ১০০% কার্যকরী হয় না। অন্যথায় পাউডার এনজাইম নিষ্কৃয় অবস্থায় এবং স্টাবল থাকে বলে পাউডার এনজাইম সবচেয়ে বেশি কার্যকরী।২। পোল্ট্রিতে ১-১৪ দিন বয়সে এনজাইম স্বাভাবিকের চেয়ে নিঃসরন কম থাকে ফলে যদি অর্গানিক ব্রুডিং সহ যেকোন ফিড পরিবর্তন ও হজম কম হলে অতিরিক্ত ওয়াটার সলুবল এনজাইম ভালো ফলাফল দিয়ে থাকে। ৩। পানিতে দ্রবণীয় এনএসপি, ডাইজেস্টটিভ এবং ফাইটেজ সমৃদ্ধ এনজাইম পোল্ট্রিতে উপযোগী।
★★★মন্তব্যঃপোল্ট্রিতে ভালো এফসিআর পেতে এনজাইম সবচেয়ে বেশি ভুমিকা পালন করে। কারন খাদ্যকে পরিপূর্ণ পুষ্টিতে রুপান্তরের মুল কারিগর এনজাইম। পোল্ট্রির খাদ্য হজম প্রক্রিয়া এবং গাট হেলথ বিষয়টি অরগানিক ব্রডিং এর জন্য অত্যাবশ্যকীয়।
ধন্যবাদান্তে….ডাঃ জহিরুল ইসলামডিভিএম (পবিপ্রবি)এম এস ইন পোল্ট্রি সাইন্স (রাবি)সিনিয়র এক্সুকিউটিভ (ভিটিএস), সাতক্ষীরা।এসকে+এফ ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড।

Please follow and like us:

About admin

Check Also

এসিডিফায়ার :

এসিডিফায়ার :  পানি জীবাণু সংক্রমণের প্রধান উৎস।ই. কোলাই,সালমোনেলা,কম্পাইলোব্যাকটার এরা কিন্তু এই পানিতেই থাকে এবং এরাই …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!