Breaking News

লিটার ভিজে যাবার কারণ/ওজন কমে যাবার কারণ

লিটার ভিজে যাবার কারণ/ওজন কমে যাবার কারণ

(এন্টারোকক্কসাস,রোটা,এস্টো,পারবো,এভিয়ান নেফ্রাইটিস,রিও,এডেনো ভাইরাস।

১।এন্টারোকক্কাসঃ

সেকেন্ডারী ইনফেকশন হিসাবে বেশি হয়।মেইনলি ব্রয়লারে হয়.

ইদানিং ব্যাপক হারে ইমারজিং ডিজিজ হিসাবে দেখা যাচ্ছে।এটি গ্রাম পজিটিভ।নরমালী ক্ষুদ্রান্ত্রে থাকে।এটি একিউট,পার একিউট,ক্রনিক হিসাবে দেখা যায়।এন্টারোকক্কাস সিকোরাম বয়স্ক ব্রয়লারে অস্টিমাইয়োলাইটিস,স্পন্ডাইলাইটিস,আর্থাইটিস করে।

এটি বাতাস,মুখ ও স্কিন দিয়ে ঢুকেএকিউট বা সাব একিউট কেসে সেপ্টিসেমিয়া ও এন্ডোকার্টাইটিস করে।এমন কি ব্রেইন নেক্রোসিস বা এনসেফালোম্যালাসিয়া করে।

লক্ষণঃ

একিউট হলে ডিপ্রেশন,লেথার্জি,রাফেল ফেদার,ডায়রিয়া,ডিম কমে যায়।সাব একিউট বা ক্রনিক হলে ্লেমনেস,হেড ট্রিমোর হয়।যদি চিকিৎসা না হয় তাহলে মারা যায়।

প্যারালাইসি হয়(Inflamation in spinal cord)।ব্রয়লার পা দুটি সামনে দিয়ে বসে থাকে।

পোস্ট মর্টেমঃ

একিউট হলে

স্পিনোম্যাগালী,হেপাটোম্যাগালি,কিডনি ফুলে যায়,সাব কিউটেনিয়াস টিসুতে কঞ্জেশন হয়।লিভার ও প্সিলনে সাদা স্পট দেখা যায়।

সাব একিউট বা ক্রনিক হলে

পেরিকার্ডাইটিস,পেরিহেপাটাইটিস,এয়ার স্যাকোলাইটিস,আর্থাইটিস/টেনোসাইনোটাইটিস

স্পন্ডাইলাইটিস,অস্টিওমাইলাইটিস(ফিমুরাল হেড নেক্রোসিস)

মাইয়োকার্ডাইটিস,ভাল্বুলার এন্ডোকার্ডাইটিস

চিকিৎসা ঃ

অক্সিটেট্রাসাইক্লিন,পেনিসিলিন.

২।রোটা ভাইরাস

এটা সাবক্লিনিকেল বা একিউট ভাবে হয় সাথে ডায়রিয়া,এন্টারাইটিস করে,এটা চিকেন,টার্কি,হাস,কবুতর,গিনি ফাউলে হয়।১-২ সপ্তাহে বেশি হয় ৬ সপ্তাহের নিচে হয়,সেকেন্ডারী হিসাবে বেশি হয় এস্টোভাইরাসের সাথে।ব্রয়লারে ৪ সপ্তাহে বেশি মারা যায়।চিকেনে ১০-৪৭% ফ্লক আক্রান্ত হয় টার্কি ১৯-৭০%।

লক্ষণঃ

অস্থির,লিটার খায়,পানির মত পায়খান,লিটার ভিজে যায়

সিভিয়ার ডায়রিয়া,ডিহাইড্রেশন,এনোরেক্সিয়া,ওজন কম,মারা যায়।

রান্টিং স্টান্সটিং হয়।পানির মত হলুদ,গন্ধ যুক্ত পায়খানা ও গ্যাস দেখা যায় ক্ষুদ্রান্ত্রে ও সিকামে।ক্ষুদ্রান্তের ভিলাই ড্যামেজ করে ফলে এন্টারাইটিস হয়ে ডায়রিয়া করে,মেল এবজরশন হয়।গল ব্লাডার বড় হয়,প্যাঙ্ক্রিয়েজ ও বার্সা ছোট হয়ে যায়।

চিকিৎসাঃ

স্যালাইন দিতে হবে,সেডের তাপমাত্রা বাড়াতে হবে,লিটার বদলাতে হবে।ভেন্টিলেশন ভাল করতে হবে

৩।এস্টোভাইরাসঃ

এটা কমন,চিকেন,টার্কি,হাস,রাজ হাসে দেখা যায় যা এন্টারাইটিস করে,ওজন ভাল হয় না।

মেল এবজর্শন সিন্ডম করে।বাচ্চাতে বেশি হয়,বয়স্করা রেজিস্টেন্ট,ভার্টিকেলি ও হতে পারে।এটি গাউট করে,নেফ্রাইটিস,চিকেন ও হাসের বাচ্চায়,বয়স্ক হাসে হেপাটাইটিস করে।এটি কো ইনফেকশন হিসাবে এডেনো,রিও ভাইরাসের সাথে আসে।সাবক্লিনিকেলি হতে পারে এমন কি ৫০% মারা যেতে পারে।

লক্ষণঃ

ডায়রিয়া,এন্টারাইটিস,লিটার ভেজা,ফ্রদি সিকাল কনটেন্ট।

থিন ওয়াল ইন্টেস্টাইন,ডিহাইড্রেশন,লিটার খায়,এবনরমাল ফেদারিং।রান্টিং স্টান্টিং,নার্ভাস নেস,এফ সি বেশি হয়।হাসের ক্ষেত্রে হেপাটাইস হয় মারা যায়,পাতলা ও সাদা পায়খানা করে,সিভিয়ার অপিস থোটোনাস হয়।

লেসনঃ

মেল এবজর্শন সিন্ড্রম,ক্ষুদ্রান্তে মিউসিন,নেক্রোসিস সেল,ভিলাস এট্রফাই হয়।

বার্সা ও থাইমাস ছোট হয়ে যায়।কিডনি ফুলে যায় ইউরেট জমা হয়।হাসের ক্ষেত্রে লিভারে হেমোরেজ হয়,বাইল ডাক্ট হাইপারপ্লাসিয়া হয়।স্পিলন বড় হয়।ফর্মাল্ডিহাইড দিয়ে জীবাণু মুক্ত করে মুরগি তুলতে হবে

 ৪।পারবো ভাইরাসঃ

মেল এবজর্শন সিন্ডম করে।ভার্টিকেল হতে পারে।।একবর আক্রান্ত হলে আজীবন থাকে

পরিবেশের প্রতি রেজিস্টয়ান্ট।ডায়রিয়া হয়(Intestinal crypt damage )

 ৫।এভিয়ান নেফ্রাইটিস ভাইরাস

সারা পৃথিবীতে দেখা যায়।

সাবক্লিকিনেলেকি বেশি হয়,

মর্টালিটি ০-১০%,ডায়রিয়া হয়,ওজন কমে যায়।বাচ্চাতে বেশি হয়,কন্টাজিয়াস

কিডনিতে ইউরেট জমা হয়,কিডনি হলদেটে হয়।।তাছাড়া নিচের রোগের কারণেও হতে পারে

৬।রিও ভাইরাস ৭।এডেনো ভাইরাস

৮।মাইকোটক্সিন ৯।ইক্লাই

৯।সাল্মোনেলা ১০।আমাশয়

১১।ক্লোস্টিডিয়াম(এন্টারাইটসি) ১২।গরম

১৩।খাবার কোয়ালিটি খারাপ হলে ১৪।বাচ্চার কোয়ালিটি খারাপ হলে

১৫।কৃমি,মেরেক্স যা নরমালী লেয়ারের ক্ষেত্রে হয়।

মর্টালিটি ছাড়াই বা অল্প কিছু মর্টালিটি হবার মাধ্যমে ওজন কম আসে বা কমে যায়।

Please follow and like us:

About admin

Check Also

বাচ্চা মুরগিতে ১ম সপ্তাহে কেন রোগ কম হয়,২সপ্তাহের দিকে কেন বেশি হয়।

বাচ্চাতে ম্যাটার্নাল এম ডি এ নয়ে আসে যা প্রটেকশন দেয়।আবার ২ সপ্তাহে বা পরের দিকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!