Breaking News
উটপাখি পালন
উটপাখি পালন

উটপাখি পালনঃ

পৃথিবীর সর্ববৃহৎ পাখির নাম উটপাখি। এটি কিন্তু উড়তে পারেনা।

মরুভূমির সৌন্দর্য বলা হয় উটপাখিকে। উটপাখি লম্বায় ৭-৮ ফুট পর্যন্ত উচু হতে পারে এবং ওজনে ১৫০-১৮০ কেজি পর্যন্ত হতে পারে। উটপাখির ডিম হলো পৃথিবীতে সর্ববৃহৎ ডিম যা ওজনে প্রায় দেড় কেজি।
উটপাখি সাধারণত তৃণভোজী অর্থাৎ শুধু মাত্র ঘাস, লতাপাতা, গুল্ম খেয়েই বেচে থাকে।

এদের অতিরিক্ত কোনো খাদ্য খরচ নেই।
সারা বিশ্বে উটপাখি পালন একটি লাভজনক ব্যবসা।

আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত, মায়ানমার, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম,ইংল্যান্ড সহ বিশ্বের অধিকাংশ দেশে বাণিজ্যিকভাবে উটপাখি পালন করা হচ্ছে।

বিশ্ববাজারে উটপাখির মাংস, চামড়া ও পালকের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। এটিই বর্তমানে ওয়ার্ল্ডের সবচেয়ে বড় পোল্ট্রি হিসাবে চাষ করা হচ্ছে।
বলা হয়ে থাকে আগামী ৫ বছরে বিশ্বে গরুর মাংসের বাজারের ৩০ শতাংশ দখল করবে উটপাখি।

কেননা ধর্মীয় ও চিকিৎসক কর্তৃক নিষেধাজ্ঞার কারনে অনেকই গরুর মাংস খেতে পারেন না।

বাট উটপাখির মাংস খুবই সুস্বাদু, ও ক্ষতিকর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নাই।

কেনো উটপাখি পালবেন?
১. সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল পাখি এবং বাংলাদেশের আবহাওয়ায় এরা সহজেই মানিয়ে নিতে পারে এবং দ্রুত বৃদ্ধি ঘটে।
২. মাংস উৎপাদের দিক থেকে উটপাখি গরুর চেয়ে এগিয়ে আছে।
৩. মাত্র ৬ মাসেই ৭০-৮০ কেজি এবং ১ বছরের মধ্যেই ১৫০ কেজি বা সাড়ে তিন মণের বেশি ওজন হয়ে থাকে।
৪. যাদের গরুর মাংসে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে, তারাও উটপাখির মাংস খেতে পারে।
৫. উটপাখির শরীরের ৭০ ভাগ মাংস হিসেবে খাওয়া যায়।
৬. উটপাখির মাংসের স্বাদ কচি গরুর মাংসের মতোই। চর্বি একেবারেই কম।
৭. গরু ২ বছরে ১০০ কেজি মাংস দেয় অন্যদিকে উটপাখি দেড় বছরেই ১৫০ কেজির বেশি মাংস দিতে পারে।
৮. গরু বছরে ১ টা বাচ্চা দেয় অন্যদিকে উটপাখি বছরে ৪০-১৩০ টি বাচ্চা ফুটাতে পারে। সুতরাং বংশবিস্তার ও মাংস উৎপাদনে গরুর চেয়ে কয়েকশ গুণের বেশি এগিয়ে আছে উটপাখি।
৯. উটপাখির মাংস সম্পূর্ণ হালাল।
১০. বাংলাদেশে উটপাখির মাংসের বিপুল পরিমাণ চাহিদা রয়েছে।
১১. মাংস ও বাচ্চা উৎপাদনের জন্য বাংলাদেশেই গড়ে উঠেছে ৬ টি বৃহৎ খামার এবং বহু ক্ষুদ্র খামারীগন উটপাখি পালন শুরু করেছে।
অনেকেই সৌন্দর্য বর্ধন এবং শখের বশে উটপাখি পালন করে থাকে৷

আমরা আপনাকে যেভাবে সহায়তা করবো-

১. আমরা সরাসরি সাউথ আফ্রিকা থেকে বাচ্চা ইমপোর্ট করছি বিগত ৫ বছর ধরে, আর তাই একমাত্র আমরাই আপনাকে দিতে পারবো সবচেয়ে কম মূল্যে ভালো ব্লাডলাইনের সুস্থ-সবল বাচ্চা।
২. আমরা আপনাকে দিবো উটপাখি পালনের সকল দিকনির্দেশনা দিবো।
৩. আপনি চাইলে বড় উটপাখি আমাদের নিকট বিক্রয় করতে পারেন৷ উল্লেখ্য আমরা উটপাখির মাংস বিক্রয় করে থাকি এবং আমাদের পেজে অর্ডার করে আপনি উটপাখির মাংস ক্রয় করতে পারেন৷ মাংস ১৫০০ টাকা কেজি।
৪. আপনি যদি বাণিজ্যিক খামার গড়তে চান, সকল দিকনির্দেশনা দিবো।
বয়সঃ- ৩৬ দিন।
মূল্যঃ- ৩৯,৫০০ টাকা জোড়া।

অর্ডারের জন্য কল করুন +8801400555105

(বিঃদ্রঃ- কল্যানপুর,ঢাকা থেকে মাল ডেলিভারি নিতে হবে। সরাসরি এসে নিজের পছন্দমতো বাচ্চা বেছে নিতে পারবেন৷ )

উটপাখির বাচ্চা বিক্রয় :
মূল্য: ৪০,০০০ টাকা ( প্রতিজোড়া)
আগ্রহি ক্রেতাগন যোগাযোগ করুন
ফোন করুন: 01867782556
পূর্ণ ট্রেডিং কোম্পানী
৬২/২ পুরানা পল্টন, ঢাকা, বাংলাদেশ
বয়স: ২৩ দিন+
ওজন: ২ কেজি+

 

দেশের প্রথম বাণিজ্যিক উট পাখির খামার, দিনাজপুরে

দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে মহিলা উদ্যোক্তার প্রচেষ্ঠায় দেশের প্রথম বাণিজ্যিক ভাবে গড়ে তোলা হয়েছে উট পাখির খামার। উপজেলার গোলাপগঞ্জ ইউনিয়নের মালিপাড়া (নয়াপাড়া) গ্রামে এই খামারটি গড়েছেন। নবাবগঞ্জ উপজেলা সদরের আঃ জলিলের মেয়ে আরজুমান আরা। আরজুমান আরা তার খামারের নাম রেখেছেন ইকো এগ্রো ফার্ম।
খামারের সত্ত্বাধিকারী আরজুমান আরা বলেন, দেশের বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রে প্রদর্শনের জন্য বা কোন প্রতিষ্ঠানে গবেষণার জন্য উট পাখি থাকলেও বাণিজ্যিকভাবে দেশের কোথাও উটপাখি লালন পালন হয় না। তাই বাণিজ্যিক ভাবে এ পাখির খামার গড়ে তুলতে। গত বছরের ২৫ সেপ্টেম্বর দক্ষিণ আফ্রিকার (মাদার ব্রিডার ফামর্) থেকে প্রতিটি উট পাখির বাচ্চার মুল্য ১৫ হাজার টাকা করে ৩ লাখ ৬০ হাজার টাকায় ২৪টি উট পাখির বাচ্চা আমদানি করেন তিনি। এর পর উট পাখি গুলি তিনি ইকো ফার্মে লালন পালন শুরু করেন। উট পাখিগুলোর বর্তমান বয়স ৬ মাস, বর্তমানে এর ওজন হয়েছে এক একটি ৮০ থেকে ৯০ কেজি করে । কিছুদিন আগে একটি উট পাখি জবাই করা হয়েছিল তাতে প্রায় ৪০ কেজি মাংস হয়েছে।
এ ব্যপারে আরজুমান আরো জানান, গরু-ছাগলের বিকল্প হিসেবে তিনি উট পাখি পালন করছেন। তার ভাষায় একটি গরু বছরে একটি মাত্র বাছুর দেয়। আর একটি উট পাখি বছরে প্রায় ৫০ থেকে ৭০টি ডিম দিয়ে থাকে, যা থেকে কমপক্ষে ৫০টি বাচ্চা পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
আরজুমান আারা বলেন কোলেস্ট্রোল মুক্ত বর্তমানে উট পাখির মাংসের আন্তর্জাতিক বাজার মূল্য প্রতি কেজি ৯০ ডলার । এর মাংসও অত্যান্ত সুস্বাদু। উটপাখি একটানা ৭০ কি.মি. গতিতে দৌড়াতে পারে। সাধারণত এরা আড়াই থেকে তিন বছর বয়সে ডিম দেয়া শুরু করে। এদের খাদ্য হিসাবে ব্যবহার করা হচ্ছে সবজি এবং ফিড। আমার খামারে নিজস্ব ডিম ফুটানো মেশিন আছে তাই উট পাখির ডিম আমার খামারের নিজস্ব মেশিনে বাচ্চা ফুটানোর পর এক একটি বাচ্চা ৮ থেকে ১০ হাজার টাকায় বিক্রি হবে বলে আমি মনে করি।
কেন উটপাখির খামার করলেন, এমন প্রশ্নের উত্তরে আরজুমান আরা জানান, তিনি মালয়েশিয়া ও নেপাল সফর করেছেন। সেখানে উটপাখি সম্পর্কে অভিজ্ঞতা নেন। আর তিনি মনে করেন অন্যান্য ব্যবসার চেয়ে এ ব্যবসায় বেশি লাভবান হওয়া সম্ভব এবং এর খাদ্য খুব সহজ লভ্য হওয়ায় তিনি উটপাখির খামার করতে আগ্রহী হয়ে উঠেন।
এ ব্যাপারে নবাবগঞ্জ উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ নাসিরুল ইসলাম জানান, উটপাখি পালনে তিনি চিকিৎসা সেবাসহ বিভিন্ন পরামর্শ প্রদান করে যাচ্ছেন। তার ভাষায় উটপাখি পালন করে আর্থিকভাবে লাভবান হওয়া সম্ভব।
উল্লেখ্য, আরজুমান আরা ২০১৬ সালের নভেম্বর মাস থেকে মাত্র ১০০ টার্কি মুরগি দিয়ে খামার শুরু করেন। বর্তমানে তার খামারে টার্কি মুরগি রয়েছে প্রায় আড়াই হাজার। এই খামারের পাশাপাশি তিনি উটপাখির খামার গড়ে তুলেছেন। আন্তর্জাতিক নারী দিবসে সফল নারী উদ্যোক্তা হিসাবে উপজেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে এই আরজুমান আরাকে বিশেষ সম্মাননা সনদ কর্তৃক প্রদান করা হয়।

লেখাঃডা মহিউদ্দিন তারেক

উটপাখি পালন উটপাখি

Please follow and like us:

About admin

Check Also

#বনরাজা_মুরগীঃ২ মাসে ২-৩কেজি খাদ্য খেয়ে ১১০০-১২০০গ্রাম ওজন আসে।

#বনরাজা_মুরগীঃ এই মুরগীর উদ্ভাবক ভারত সরকারের “প্রজেক্ট ডাইরেক্টরেট অন পোল্ট্রি “। এই মুরগীর পালকে বিচিত্রতা …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!