Breaking News

যে কারণগুলোতে আপনার বিড়াল/কুকুর বিষক্রিয়ায় মারা যেতে পারে!

যে কারণগুলোতে আপনার বিড়াল/কুকুর বিষক্রিয়ায় মারা যেতে পারে!

পোষা কুকুর বা বিড়াল সাধারণ কিছু খাবার খেয়েই অসুস্থ হয়ে যেতে পারে, এমনকি মারা যেতে পারে।
পোষা কুকুর বা বিড়াল থাকলে আপনি লক্ষ করবেন, তারা অনেক খাবারের ব্যাপারেই বেশ কৌতূহলী। আপনি যা খাচ্ছেন, সেটা তারা শুঁকে দেখে, এমনকি অনেক সময় খেতেও চায়। এর পাশাপাশি কাগজ, কাপড়, গাছপালা—এগুলোও তারা খাওয়ার চেষ্টা করতে পারে।

১) সাধারণ কিছু ওষুধ
কিছু ওষুধ আমরা প্রেসক্রিপশন ছাড়াই খাই। যেমন প্যারাসিটামল, পেইনকিলার, অ্যালার্জি কমানোর ওষুধ বা ভিটামিন ইত্যাদি। এগুলো পোষা প্রাণীর পেটে কোনোভাবে গেলে সাথে সাথেই ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। মানুষের ওষুধ কখনোই পশু ডাক্তারের পরামর্শ না নিয়ে পোষা প্রাণীকে দেবেন না। বিশেষ করে প্যারাসিটামল কখনোই কুকুর বা বিড়ালকে দেওয়া যাবে না।

২) প্রেসক্রিপশনের ওষুধ
একজন মানুষের জন্য প্রেসক্রিপশনে যে ওষুধ দেওয়া হয়, তা আরেকজন মানুষের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। এই ওষুধ নিরীহ কুকুর-বিড়ালের পেটে গেলে ক্ষতি আরও বেশি হতে পারে। তাই এসব ওষুধ খুব সুরক্ষিত জায়গায় রাখুন।

৩) কিছু খাবার
আপনি নিজে খেতে খেতে কুকুর বা বিড়ালকেও খাওয়াচ্ছেন, কিন্তু কী খাওয়াচ্ছেন তার দিকে নজর রাখুন। আঙুর, কিশমিশ, পেঁয়াজ ও রসুন বিড়ালের শরীরে বিষক্রিয়া তৈরি করতে পারে। এ ছাড়া কিছু মিষ্টি খাবার, এমনকি টুথপেস্টে জাইলিটল নামের একটি উপাদান থাকে, যা কুকুরের ক্ষতি করতে পারে। আর পোষা প্রাণীকে যে অ্যালকোহল দেওয়া যাবে না, তা বলাই বাহুল্য।

৪) চকলেট
মিল্ক চকলেট, ডার্ক চকলেট বা বেকিং চকলেট—সবই কুকুর ও বিড়ালের জন্য ক্ষতিকর। এমনকি চকলেট মিল্ক বা কেক—এগুলোও পোষা প্রাণীকে দেওয়া যাবে না। এতে তাদের খিঁচুনি হতে পারে।

৫) পোষা প্রাণীর ওষুধ
পোষা প্রাণীকে যে ওষুধ দেওয়া হচ্ছে, সেটাও সঠিক পরিমাণে দিতে হবে এবং প্রাণীটি যেন ভুলে খেয়ে নিতে না পারে এমন জায়গায় রাখতে হবে।

৬) ঘরোয়া জিনিস
প্রত্যেক বাড়িতেই কিছু-না-কিছু জিনিস থাকে, যেমন—রং, আঠা, লিকুইড সাবান ইত্যাদি; এগুলো খেয়েও আপনার পোষা প্রাণীর বিষক্রিয়া হতে পারে।

৭) ইঁদুরের ওষুধ
ঘরে ইঁদুরের উপদ্রব থাকলে অনেকেই অল্প কিছু খাবারে ইঁদুরের বিষ মিশিয়ে তা আনাচেকানাচে রেখে দেন। এটা পোষা প্রাণীর পেটে গেলে ভয়াবহ পরিণতি হতে পারে। এ ছাড়া আপনার পোষা প্রাণী যদি বাইরে যায়, তাহলে আবর্জনা বা ফেলে দেওয়া ইঁদুরের বিষও তাদের পেটে যেতে পারে।

৮) কীটনাশক
তেলাপোকার ওষুধ বা মশার ওষুধ, কয়েল এগুলো কৌতূহলবশত খেয়ে ফেলতে পারে কুকুর বা বিড়াল। এতে তারা দ্রুত অসুস্থ হয়ে যেতে পারে।

৯) গাছ
টবের গাছ কেনার আগে নিশ্চিত হয়ে নিন এতে কুকুর বা বিড়ালের ক্ষতি হবে কি না। বিশেষ করে লিলি গোত্রের ফুল বিড়ালের পেটে গেলে কিডনি ফেইলিওর পর্যন্ত হতে পারে।

১০) বাগানের সরঞ্জাম
আপনার বাসায় যদি বাগান থাকে তাহলে বিড়াল বা কুকুর খুব আরাম করে ঘুরে বেড়াতে পারে। কিন্তু বাগান করার সময় সার, কীটনাশক, আগাছানাশক কিছু রাসায়নিক ব্যবহার করতে হয়। এগুলো হতে পারে কুকুর ও বিড়ালের জন্য ক্ষতিকর।
আপনি যদি খেয়াল করেন যে আপনার কুকুর বা বিড়াল এমন কিছু খেয়ে ফেলেছে, তাহলে দ্রুত পশু ডাক্তারের কাছে নেওয়া উচিত।

pets.xyz

Please follow and like us:

About admin

Check Also

নিদ্রিষ্ট স্থানে বিড়ালকে টয়লেট করতে শেখাবেন কিভাবে?

নিদ্রিষ্ট স্থানে বিড়ালকে টয়লেট করতে শেখাবেন কিভাবে? বিড়াল নিয়ে সবার আগে প্রথম যে সমস্যায় আপনাকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!