Breaking News
আর্দ্রতা শোষণের উপায়
আর্দ্রতা শোষণের উপায়

ইনকিউবেটরে ডিমে সঠিক আর্দ্রতার প্রয়োজনীয়তা এবং ডিম পরিক্ষা করে আর্দ্রতা নির্ণয়ের উপায়ঃ

 ইনকিউবেটরে ডিমে সঠিক আদ্রতার প্রয়োজনীয়তা এবং ডিম পরিক্ষা করে আদ্রতা নির্ণয়ের উপায়ঃ

ডিম ফুটার জন্য সঠিক তাপমাত্রা রাখার পাশাপাশি সঠিক  আর্দ্রতা বজায় রাখাটাও বেশ জরূরী।
ডিম ফুটার জন্য সঠিক আর্দ্রতা কেনো রাখতে হবে সেই সম্পর্কে জানতে হলে প্রথমে আমাদের আদ্রতা আর্দ্রতাসম্পর্কে জানতে হবে।

বাতাসের  আর্দ্রতাসম্পর্কে আমরা জানি, বাতাসে জ্বলীয় বাস্পের উপস্থিতিকে বাতাসের  আর্দ্রতা বলে।
ডিম ফুটার জন্য সঠিক সময়ে ডিম সঠিক পরিমানে শুকানো বেশ জরুরী,
যেহেতু ডিমের ভিতর জ্বলীয় পদার্থ থাকে তাই সেই জ্বলীয় পদার্থ শুকানোর সহজ উপায় হচ্ছে ডিমের সংস্পর্শে শুষ্ক পদার্থ আনা, ইনকিউবেটরে সেই কাজটাই শুষ্ক বাতাসের দ্বারা করা হয়।

বাতাস এবং ডিমের তাপমাত্রা সমান রেখে সেই বাতাসকে ডিমের সংস্পর্শে আনলে বাতাস সেই ডিমের তরল শুষে নেবে।

কিন্তু বাতাসে যদি পূর্বে থেকেই পানির অনু থাকে তাহলে শুস্ক বাতাস অপেক্ষা ভিজা বাতাসের পানি শোষনের ক্ষমতা কমে যায়।
যেমন বর্ষাকালে ভিজা কাপড় দেরিতে শুকানোর কারন হচ্ছে বর্ষাকালে বাতাসের  আর্দ্রতা বেশি থাকে।
এখানে আমরা বুঝলাম ইনকিউবেটরের ভিতরে সমান তাপমাত্রা রেখে বাতাসে যদি  আর্দ্রতা কম রাখি তাহলে ইনকিউবেটের ভিতর ডিম দ্রুত শুকাবে।
কিন্তু ইনকিউবেটরে ডিমের বয়সের সাথে সাথে ডিম শুকানোটাই সব চেয়ে ভালো।
মূলত হেচিং এর সময় অপেক্ষা হেচিংএর আগে  আর্দ্রতাকম রাখা হয় কারন
ডিমকে হেচিংএর আগেই সঠিক পরিমানে শুকাতে হয়, হেচিংএর সময়  আর্দ্রতা কম রাখলে ডিম শুষ্ক হয়ে ডিমের ভিতর বাচ্চার শরীর আটকে যায়।
আমরা ডিম পরিক্ষার জন্য কিছুদিন পর পর অন্ধকার ঘরে ডিমের অপর পিষ্ঠে টর্চ লাইটা দিয়ে ডিমের ভ্রুনের গঠন সম্পর্কে জেনে থাকি।
(নিচের ছবিতে লক্ষ করুন।)
কিন্তু আমরা যদি সেই ক্যান্ডালিংএ গুরুত্ব দিয়ে এটা দেখি যে ডিম কতটুকু খালি হলো তাহলে আমরা সহজেই বুঝতে পারবো ডিমে সঠিক  আর্দ্রতা থাকছে কিনা।
ইনকিউবেটরে ডিম দেবার দিন থেকে হেচিং এর আগ পর্যন্ত ডিমকে ৮%থেকে ১২% পর্যন্ত শুকাতে হবে তবেই সেটা নিরাপদে হেচিং হবে।
অর্থাৎ ডিমের ভিতর যে পরিমান জাগয়া থাকবে তার ৮থেকে ১২ভাগ ফাঁকা হতে হবে।
ডিমের তরলের কত ভাগ শুকিয়েছে সেই বিষয়টা ডিমের অপর পিষ্ঠে টর্চ লাইট দিয়ে সহজেই অনুমান করা যায়।

ডিম দেবার আগে পরিক্ষা করে নেবেন ডিমের ভিতর শুন্যস্থানের পরিমান কতটুকু, এর পরে ৭এবং ১২তম দিনে ক্যন্ডালিং এর সময় যদি দেখেন ডিমের তরল ঠিক তেমনই আছে তখন বুঝবেন  আর্দ্রতাবেশি থাকছে, অথবা ঐ ডিমের কাছে আর্দ্রতাআদ্রতা বেশি থাকছে।
এবং ১২তম দিনে যদি দেখেন ডিমের অর্ধেক খালি হয়েছে তখন বুঝবেন  আর্দ্রতা কম থাকছে।
আর্দ্রতা খুব বেশি দেখলে শুষ্ক বস্তু বা ছাই, মুড়ি, ইত্যদি দিয়ে যতটা সম্ভব আদ্রতা কমিয়ে রাখবেন তাহলে প্রথমের সেই বেশী  আর্দ্রতা হেচিংএর সময় বাচ্চার মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়াতে পারবেনা।

আর্দ্রতা যদি কম দেখেন তাহলে একটা কাপড় ভিজিয়ে এর পরে সেই কাপড়ের পানি চিপে ফেলে দিয়ে, সেই হালকা ভিজা কাপড় ইনকিউবেটরের ফাকা স্থানে শুকাতে দেবেন, এতে সেই কাপড়ের পানি বাতাসে মিশে গিয়ে ইনকিউবেটরের ভিতর আর্দ্রতা বাড়িয়ে তুলবে।
যার ফলে প্রথমের খুব কম   আর্দ্রতা হেচিংর সময় তেমন প্রভাব ফেলতে পারবেনা।
আদ্রতা কমানো বা বাড়ানো যদি খুব কঠিন হয়ে পড়ে তাহলে যতটা সম্ভব কমিয়ে বা বাড়িয়ে রাখতে হবে, এতেও হেচিংএর সময় এর উপকারিতা পাওয়া যাবে।

 লেখক;আব্দুল ওহাব
Please follow and like us:

About admin

Check Also

হ্যাচারী

হ্যাচারীতে হ্যাচিং বাচ্চা্য় কি কি ত্রুটি হয়,কারণ এবং সমাধান

হ্যাচারীতে হ্যাচিং বাচ্চা্য় কি কি ত্রুটি হয়,কারণ এবং সমাধান ১।ভ্রূণ  মারা যাওয়া কারণ প্যারেন্টে সুষম …

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Translate »
error: Content is protected !!