মুরগির গাউট নিয়ে বিস্তারিত

বেশি এবং দ্রুত লাভবান হওয়ার জন্য হাই সিলেকশন প্রেশারের  ফলে গাউট,এসাইটিস,সাডেন ডেথ সিন্ড্রম এই রোগ গুলি হচ্ছে। ইতিমধ্যে পোল্ট্রিতে  কয়েকবার জেনেটিক মডিফিকেশন করা হয়েছে তাই নিউট্রিশন,ব্যবস্থাপনা ও স্বাস্থ্য যদি ভাল না থাকে তাহলে ভাল রিজাল্ট পাওয়া যাবে না বরং রোগ ব্যাধি বেশি হবে। তাছাড়া   ইউরোলিথিয়াসিস এর ( পাথর যদি ইউরেটা্রে ...

Read More »

ব্রুডিং মুরগির ভবিষৎ জীবনের ভিত্তি,ব্রুডিং এর উদ্দেশ্য,ভাল মুরগির বাচ্চার বৈশিষ্ট্য,সুস্থ মুরগির বাচ্চা কি করে,দেখুন বিস্তারিত.

কৃত্রিম বা প্রাকৃতিকভাবে বাচ্চা মুরগির তাপায়ন,বাতাস চলাচল,খাবার,পানি এবং সর্বোপরি ভালো আরামদায়ক ব্যবস্থার নামই ব্রুডিং. সাধারনত ১-৪ সপ্তাহ বাচ্চার ব্রুডিং করা হয়.বাচ্চা অবস্থায় মুরগি তাপ নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনা কারণ তাপ নিয়ন্ত্রনকারী অংগ গুলি পরিপূর্ণতা পায়না. বাচ্চা মুরগির  নরমাল তাপমাত্রা ১০৩'(৩৯ডিগ্রী সেন্টিগেট) এবং বয়স্ক মুরগির তাপমাত্রা ১০৬’ ফারেনহাইট.(৪০-৪১ডিগ্রি) ব্রুডিং ঘরে লিটারের সঠিক ...

Read More »

মুরগির পেঠে পানি জমা(এসাইটিস):বিস্তারিত

এটা মূলত ব্রয়লার মুরগিতে হয় কারণ ব্রয়লার দ্রুত বৃদ্ধি পায়. হার্ট(হৃৎপিন্ড) এবং ফুসফুস ছোট. ব্লাড প্রেসার বেশি. মেটাবলিজম রেট বেশি. খাদ্যে এনার্জি এবং প্রোটিন বেশি। এসব কারণে রক্তবাহী চাপ বেড়ে যায় এবং প্রোটিনবাহী তরল পদার্থ রক্তনালীর  অর্ধভেদ্য পদার্থ ভেদ করে পেঠে জমা হয়, তাছাড়া ছোট ফুসফুস প্রয়োজনীয় অক্সিজেন ধারণ এবং ...

Read More »

পোল্ট্রি খামারে জৈবনিরাপত্তা এবং ফার্মে কিভাবে রোগ আসে ও জীবাণু কতদিন বেঁচে থাকে:বিস্তারিত:

জৈবনিরাপত্তা হলো এমন একটি যৌথ ব্যবস্থাপনা যা বিভিন্ন কর্মকান্ডের মাধ্যমে একটি খামারের ভিতর অথবা এক স্থান হতে অন্য স্থানে রোগ সৃস্টিকারি জীবানূ অনুপ্রবেশ ও বিস্তারে বাধা প্রদান করে. বিভিন্ন বিষয়কে স্কোরিং করে আমরা বায়োসিকিউরিটি সমন্ধে ভালভাবে বুঝতে পারি, স্কোর বেশি মানে বায়োসিকিউরিটি ভাল,যেটা সরাসরি রোগ বিস্তারে সাহায্য করে তাকে বেশি ...

Read More »

কোন রোগে কত % ডিম কমে , মর্টালিটি ও মর্বিডিটি% সহ

মর্বিডিটি,মর্টালিটি,প্রডাকশন কমার ধরণ

রোগ                      প্রডাকশম কমে 1.A I.                              10- 80% 2.S H S.                           70 3.Coryza                          10-40 4.I L T.                     ...

Read More »

লেয়ারের লাইটিং প্রোগ্রাম,কত ওয়াট,কত লাক্স,বয়স অনুযায়ী খাবার, ওজ্‌ন,খাবার ও পানির পাত্র।

লাইটিং প্রোগ্রাম

লাইটিং প্রোগ্রাম সিস্টেম ১। ১ম দিন থেকে প্রতিদিন ১০-১৫ মিনিট করে কমাতে হবে যা ৮-১০ সপ্তাহে প্রাকৃতিক আলোতে চলে আসবে এবং তা ১৭-১৮ সপ্তাহ পর্যন্ত থাকবে.প্রাকৃতিক আলো ১২.৩০ ঘন্টা বুঝয় ,দিনের আলোকে বুঝাবে না। মুরগির ওজন ও খাবার  যদি ভাল থাকে তাহলে তাড়াতাড়ি মানে দিনে ১৫ মিনিট করে কমাতে হবে ...

Read More »

সুস্থ লিভার সুস্থ মুরগি(লিভারের সাথে জড়িত কি কি রোগ)

লিভার

লিভারের ভুমিকা: খাবারের পুস্টি ডাইজেশন( হজম),মেটাবলিজম( পরিপাক) এবং ইউটিলাইজেশন( ব্যবহার)। জীবানূ, কেমিকেল ও  টক্সিন লিভারের জন্য হুমকি স্বরূপ। লিভার যদি ভাল না থাকে  পাখি অসুস্থ হয় এবং  প্রডাকশন খারাপ হয়। বাচ্চা মুরগির লিভার ব্রাইট ইয়েলো( হলদে) হয় কারণ কুসুম থেকে লিপিড বা চর্বি শোষণ করে যা হলদে কালার। ৮-১৪ দিন ...

Read More »

মোড অফ একশন: এনজাইম,এসিডিফায়ার,প্রবায়োটিক,এন্টিমাইকোটক্সিন,কিডনিটনিক,রেস্পিরেটরি,স্টিমোলেন্ট,জীবানোনাশক এবং ভাইরাস.

মোড অফ একশন  ১।এনজাইম সাবস্টেট যদি সুক্রোজ( গ্লোকোজ এবং ফুকট্রোজ এর কম্বিনেশন)হয় তাহলে এনজাইম এর এক্টিভ সাইটের সাথে মিলিত হয়ে কমপ্লেক্স গঠন করে. এই কমপ্লেক্সের সাথে পানি মিশে ফলে এতে স্টেস পরে যাতে গ্লোকোজ এবং ফুক্ট্রোজ আলাদা হয়ে যায়. পাশাপাশি এনজাইম আলাদা হয়, পরবরতিতে অন্য কোন সাবস্টেটের সাথে মিলিত হওয়ার ...

Read More »

মুরগির ঠোঁটকাটা এবং ব্যবস্থাপনা

মুরগির অভ্যাস হলো দলের মধ্যে নিজের প্রাধান্য  বিস্তার করা।এ কারণে তারা পরস্পর যুদ্ধ করে।যুদ্ধে প্রাধান্য স্থির হয়।তখন অন্যরা তার অধীনস্থতা মেনে নেয়।দলের মধ্যে যারা দুর্বল তাদের সবল মু্রগি ঠোকরায়। তাছাড়া মুরগির  ঠোঁট যখন বড় হয় তখন এক মুরগি  আরেক মুরগির  ঠোঁট থেকে ভয় পায় এবং ভাবে যদি সে আগে নিজেকে ...

Read More »

Mode of Action( Antibiotics,Anticoccidial &Anthelmintic((static or cidal, Atagonism,Synergestic,Acidic or Basic & not suitable in kidney affected & side effect.)

এন্টিবায়োটিস

Shortcut:মোড অফ একশন Antibiotics.                                Act on 1.Amoxycillin&cefalexin.      Cell wall 2.Quinolone(Flumi.cipro.enro Nor.Levofloxacilline.                   D N A 3.tylosin.tilmicosin erythromycin.Tiamulin.linco mycin.spiramycin.chloram        50RS phenicol. Florfenicol 4,Tetracycline(oxy.Doxy.CTC) Aminoglycosides(Genta.neo.        30RS Amikasin.kana.tobramycin 5.Colistin.                 ...

Read More »

কি কি কারণে ডিমের রং,খোসা এবং আকার পরিবর্তন হয়ঃএ টু জেট

অনেক খামারির অভিযোগ ডিমের কালার নষ্ট হয়ে গেছে,খোসা পাতলা,ছোট ডিম এবং আকাবাকা ডিম, তাই দাম কম দিচ্ছে. এভাবে প্রায় ৫%-১০% দাম কম দেয় এবং ডিম বিক্রি করতে কষ্ট হয়. বংশগত কারণে কিছু জাত ও বর্ণের মুরগি মোটা খোলস এবং কোন কোন জাতের মুরগি পাতলা খোলস যুক্ত ডিম পাড়ে. ডিম উৎপাণের১ম  ...

Read More »

মুরগির ব্রংকাইটিিসঃকারণ,লক্ষণ,পোস্ট মর্টেম,প্রতিরোধ এবং চিকিৎসা

মুরগির ব্রংকাইটিিসঃকারণ,লক্ষণ,পোস্ট মর্টেম,প্রতিরোধ এবং চিকিৎসা ১৯৩১ সালে Schalk and Hawan আমেরিকার ডাকোটায় ১ম আই বির রিপোর্ট করেন ১৯৩৬ সালে Beach and Schalm  আই বি আইডেন্টিফাই করেন এবং মাল্টিপল সেরোটাইপ রিপোর্ট করা হয় ১৯৫৬ সালে। নেফ্রোজেনিক আই বি ১৯৬০ সালে আইডেন্টিফাই করেন এতে প্রডাকশন প্রায় ২০-৩০% কমে যায় এবং বাচ্ছা আক্রান্ত ...

Read More »

মুরগির ঠোকরাঠুকরি(cannabolism) এবং প্রলাপ্স

এটি মুরগির খারাপ অভ্যাস যার জন্য মূলত পরিবেশ বা ব্যবস্থাপনা দায়ী. ডিম পাড়া অবস্থায় অনেক ফার্মে জটিল অবস্থার সৃস্টি হয়,অনবরত এক মুরগি আরেক মুরগিকে ঠোকরায়, ব্লিডিং হতে থাকে এবং অবশেষে মারা যায় যা অনেক সময় কন্টোল করা যায়না. অনেক খামারি দেখেছি যারা শেষে প্রডাকশনের মুরগি বিক্রি করে দিয়েছে এবং ১০০০ ...

Read More »

মুরগি ছাটাই,প্রয়োজনীয়তা এবং প্রভাব:

ছাটাই হচ্ছে দুর্বল,অনুৎপাদনশীল এবং রোগাক্রান্ত ইত্যাদি বৈশিষ্টের মুরগিকে ঝাক থেকে আলাদা করে দেয়া. প্রয়োজনীয়তা:১০০০ মুরগির প্রডাকশন যদি ৯০% হয়,খাবার যদি ১২০ গ্রাম করে খায়, তাহলে খাবার লাগবে ১২০ কেজি. এর মধ্যে যদি ৩০ টা মুরগি ডিম না পারে, তাহলে ছাটাই করে দিলে, প্রডাকশন বাড়বে ৩% এবং খাবার কম লাগবে ৩০*১২০:৩৬০০ ...

Read More »

মুরগির ফার্মে কাজের রুটিন

  আমরা অনেকেই মুরগি ফার্ম দিতে চাই বা দেই, সেটা হোক নিজের শখের বসে বা কর্মসংস্থানের জন্য। কিন্তু আমরা অনেকেই জানি না কি ভাবে মুরগির ফার্মে সময় দিতে হয়? আজ আপনাদের সাথে মুরগির ফার্মে কাজের রুটিন ধারাবাহিক ভাবে নিচে আলোচনা করা হলোঃ ক.দৈনিক কাজ ঃ ১.পানির পাত্র পরিস্কার করা এবং খাবার পাত্র ...

Read More »

মুরগির শীতকালীন ব্যবস্থাপনা(এই শীতে কি করা উচিত কি করা উচিত না।)

শীতকালীন ব্যবস্থাপনা

পরিবেশের পরিবর্তনের প্রভাব সকল জীবের মত মুরগির স্বাভাবিক জীবন প্রবাহ ও শারীরবৃত্তীয় কাজকর্মকে প্রভাবিত করে এবং এর সাথে সাথে তাদের সক্ষমতাকে প্রভাবিত করে. শীতকাল খুব গুরুত্বপূর্ণ কারণ এই সময়ে তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় প্রডাকশন কমে যায়,হ্যাচাবিলিটি,ফার্টিলিটি কমে যায়,পানি কম খায়,ব্রয়লারের  এফ সি আর বেড়ে যায়,ওজন কমে যায়। শীতে তাপমাত্রা ৮-৯ ডিগ্রি ...

Read More »
Translate »
error: Content is protected !!